• সোমবার, নভেম্বর ২৯, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫১ সকাল

দুর্গাপূজায় বাঙালির ঐতিহ্যবাহী ১০ পদের মিষ্টি

  • প্রকাশিত ১২:৫৩ রাত অক্টোবর ৫, ২০২১
দুর্গাপূজার মিষ্টি
ইউএনবি

বাঙালিদের এই মহোৎসবে দেবী দুর্গার স্তুতির সাথে সাথে পেট পূজাও চলে সমানতালে। বাঙালির ঘরে ঘরে অন্যান্য জমকালো অনুষ্ঠানগুলোতেও ভোজন পর্বের এক বিরাট অংশ জুড়ে জায়গা করে নেয় এই মিষ্টিগুলো

শারদীয়া দুর্গাপূজা মানেই আশ্বিন মাসের সংক্রান্তি জুড়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মহান ধর্মীয় উৎসব। বাঙালিদের এই মহোৎসবে দেবী দুর্গার স্তুতির সাথে সাথে পেট পূজাও চলে সমানতালে। এ সময় আরাধনার জন্য তৈরি প্রসাদের স্বাদে হিন্দু অধ্যুষিত এলাকার সীমানা ছাড়িয়ে দিগ্বিদিক একাকার হয়ে যায়। পূজা উপলক্ষে একদিকে যখন চলে পোশাক-আসাক ও সাঁজ-গোজের কড়চা, অন্যদিকে ভোজন রসিক বাঙালি স্বপ্ন বুনতে থাকে মিষ্টি দিয়ে উদরপূর্তির। এ শুধু ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত জিবের খোরাক মিটানো নয়, দুর্গাপূজার মিষ্টি বাঙালির ঐতিহ্যও বটে। বাঙালির ঘরে ঘরে অন্যান্য জমকালো অনুষ্ঠানগুলোতেও ভোজন পর্বের এক বিরাট অংশ জুড়ে জায়গা করে নেয় এই মিষ্টিগুলো।

দুর্গাপূজায় বাঙালির ঐতিহ্যবাহী ১০ পদের মিষ্টি

নলেন গুড়ের সন্দেশ

শীতকালে খেজুরগাছ থেকে সংগ্রহ করা হয় খাঁটি নলেন রস আর এই রসেই বানানো হয় নলেন গুড়। এই গুড়ের ডিশের খ্যাতি বিশ্বজোড়া। বংশ পরম্পরায় বিশেষত হিন্দু কারিগরেরা নলেন গুড়ের সন্দেশ বানিয়ে থাকেন। নলেন গুড়ের সাথে এই সন্দেশ বানানোর প্রধান উপাদান দুধের ছানা।

বছরের শেষ নাগাদ শীত ও বসন্ত জুড়ে প্রায় ছয় মাস এই সন্দেশ পাওয়া যায়। আর তাই এই সময়ের বাঙালির প্রতিটি উৎসবে ভোজের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে আকর্ষণীয় এই মিষ্টান্নটি। চিনির বদলে এই গুড় ব্যবহার করে তৈরি করা নলেন গুড়ের পায়েসও বেশ জনপ্রিয়।

ছানার পায়েস

বাঙালির প্রতিটি উৎসবে ছানার পায়েসের জুড়ি মেলা ভার। চেখে দেখার আগে ছানার ক্যানভাসের উপর পেস্তা, কিশমিশ, অ্যামন্ড ও কাজু বাদামের সজ্জা দেখেই মন ভরে যায়। তাই পরিবেশনের সাথে সাথেই বাচ্চা থেকে শুরু করে বুড়ো কারোরই গলধকরণে বেগ পেতে হয় না।

অনেকের কাছে এটি ক্ষীর বা ফিরনি নামেও পরিচিত। মূলত পায়েস হলো মোঘল আমলের মিষ্টান্ন। এতে কাশ্মীরী ও পারস্য রন্ধন-শৈলী সংযোজিত হয়ে তৈরি হয় ফিরনি। আর ফিরনিতে উত্তর ভারতীয় রীতিতে দুধের মিষ্টি থাকায় এর নাম কোথাও কোথাও বদলে ক্ষীর হয়ে যায়।

মিষ্টি দই

মিষ্টি দইকে মিষ্টির রাজা বলা যেতে পারে। শুধুমাত্র ঘনীভূত দুধ ও চিনিতে তৈরি আশ্চর্য এই খাবারটির স্বর্গীয় স্বাদ একবার নিলে বারবার মনে করিয়ে দেয়। মুখের ভেতরে নিয়ে হালকা চাপ দিতেই অমৃত স্বাদের অনুভূতি জানান দিতে শুরু করে।

বাংলাদেশসহ ভারতের ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের মানুষদের প্রিয় মিষ্টান্নের নাম মিষ্টি দই। বগুড়ার দইয়ের জগত জোড়া খ্যাতির কথা সবার-ই জানা। স্থানীয়দের মতে দইয়ের ইতিহাস প্রায় আড়াইশো বছরের পুরনো। সে সময় বগুড়ার কাছেই অবস্থিত শেরপুরে বসবাসরত ঘোষ সম্প্রদায় বংশ পরম্পরায় দই বানানোর কাজ করতো।

রসগোল্লা

ভোজন রসিক বাঙালির পরিচয় বহন করে রসগোল্লা, যার জন্য এর মিষ্টান্নের নাম বলা হয় বাঙালির রসগোল্লা। কড়া রান্না করায় পোড়ামাটির মতো বাদামি রঙের হয় এই মিষ্টি। এই মিষ্টিকে ভিত্তি ধরে বানানো হয় বিভিন্ন নামকরা মিষ্টি। এগুলোর মধ্যে রাজভোগ ও ক্ষীর কদম অন্যতম।

রসগোল্লার উৎপত্তি নিয়ে বেশ মতবিরোধ আছে। বিশেষজ্ঞদের মতে পর্তুগীজদের আমলে বর্তমান বরিশালের পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় হিন্দু ময়রাগণ রসগোল্লা বানাতেন। পরবর্তীতে এদের বংশধরেরা কলকাতা, ওড়িশায় স্থানান্তরের মাধ্যমে সেখানেও রসগোল্লার জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে দেন।

রাজভোগ

ছানা, জাফরান ও শুকনো ফলের মিশ্রণে চিনিতে ভরপুর জিহ্বে জল আনা মিষ্টি রাজভোগ। আকারে বড় মুখ রোচক এই স্পঞ্জি মিষ্টিগুলো অনেকটা রসগোল্লার মত। খোয়া দিয়ে ভরা এই রসাল মিষ্টি একের পর এক শেষ করার জন্য রীতিমত দুঃসাহসের প্রয়োজন। কারণ মিষ্টি স্বাদের এই আধিক্য একমাত্র শুধু মিষ্টিপ্রেমীদের পক্ষেই বশে আনা সম্ভব। এরপরেও দেশ-বিদেশের মিষ্টিপ্রিয়রা একবার হলেও এই মিষ্টির স্বাদ আস্বাদন করে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে রাখেন।

পান্তুয়া

পশ্চিমবঙ্গের কালনা, রানাঘাট ও কাটোয়ায় বিখ্যাত এই মিষ্টান্ন বেশ সুস্বাদু এবং হৃদয়গ্রাহী। পান্তুয়া অনেকটা গুলাব জামুনের মতো দেখতে এই রসাল মিষ্টি ছানা, ময়দা, ও খোসার পেস্ট থেকে তৈরি করা হয়। মাঝারি আকারের মিষ্টিবলগুলো ডুবো চিনির সেরায় ভেজে তাতে এলাচ দেয়া হয়।

এই মিষ্টিটির জনপ্রিয়তা শুরু হয় দেশভাগের সময় সুরেন্দ্রলাল কুণ্ডুর হাত ধরে। সে সময় তিনি বাংলাদেশ থেকে কাটোয়ায় চলে যান এবং ছেলে প্রাণকৃষ্ণকে সাথে নিয়ে একটি খাবারের দোকান দেন। সেখানেই প্রাণকৃষ্ণ বানাতে শুরু করেন ক্ষীরের পান্তুয়া। প্রাণকৃষ্ণের ডাকনাম পরান-এর নামানুসারে স্থানীয়রা মিষ্টান্নটিকে পরানের পান্তুয়া বলে ডাকতে শুরু করে।

ল্যাংচা

বর্ধমানের রাজা তাঁর পুত্রবধূর মিষ্টি খাওয়ার শখ মেটাতে নদিয়া নিবাসী ময়রা নামক এক ল্যাংড়া মিষ্টির কারিগরকে রাজপ্রাসাদে ডেকে আনিয়েছিলেন। ময়রা’র বানানো মিষ্টির স্বাদে মুগ্ধ হয়ে তাকে বর্ধমানের বড়শূল গ্রামে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়। ময়রা’র মিষ্টির দোকান করে দেয়া হয় বাদশাহী সড়কের উপর শক্তিগড় গ্রামে, যেখান থেকে প্রতিদিন এক মণ করে মিষ্টি যেতো বর্ধমান প্রাসাদে। পরবর্তীতে এই ময়রা’র মিষ্টান্ন ল্যাংচা নামে বহুল পরিচিতি পায়।

পান্তুয়ার একই গোত্রভুক্ত এই রসাল মিষ্টিটি প্রথমে নলাকার ছিলও। পরে এটি পান্তুয়ার মতই গোলাকার করা হয়। অনেকের কাছে এটা বাংলাদেশের কালোজামের মত দেখতে।

চমচম

বাংলাদেশের টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম বাঙালির একটি ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি। ভারতের উত্তর প্রদেশের বালিয়া জেলার রাজা রামগড় ও তাঁর নাতি মতিলাল গড়-এর অবদানে এই মিষ্টি স্বাদ ও উপাদানের গুণগত মানে সিদ্ধি লাভ করে।

প্রায় দুইশত বছর পূর্বে যশোরত হাল নামের এক কারিগরের হাতে প্রথম চমচম তৈরি হয়। টাঙ্গাইলের

যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর পানির সহজাত বৈশিষ্ট্যের কারণে চিনির গায়ে দ্রবণ থাকায় অন্যান্য মিষ্টি থেকে চমচম অপেক্ষাকৃত কম পচনশীল হয়ে থাকে। মাখন, চিনি ও ময়দার মিশ্রণে সুস্বাদু এই মিষ্টিকে বাংলাদেশের মিষ্টির রাজা হিসেবে অভিহিত করা হয়।

ক্ষীর কদম

বাইরে গুড়ো চিনির খোয়া ভাজা ক্ষীর এবং ভেতরে লুকানো রসগোল্লা- এই দুই স্তরের ক্ষীর কদম খেতে যেমন মজা দেখতেও তেমনি সুন্দর। পরিবেশনে আলাদা সৌন্দর্য আনার জন্য এর অতিরিক্ত কিছুই প্রয়োজন পড়ে না। কদম ফুলের মত দেখতে হওয়ায় মিষ্টান্নটির এরকম নামকরণ। ক্ষীর ও কদমের এমন দারুণ সংযোজনে বাঙালির পূজাগুলো মুখরিত হয়ে ওঠে। এছাড়া শৈল্পিক রন্ধনপ্রণালীর এক আশ্চর্য প্রয়োগ এই ক্ষীর কদম যেখানে মেহমান ও মেজবান উভয়ের মাঝেই মুগ্ধতা সৃষ্টি করে।

কাঁচাগোল্লা

গরুর দুধের কাঁচা ছানা ও এলাচে মিশ্রিত নিমেষেই মুখ মিষ্টি করে দেয়ার মত একটি খাবার এই কাঁচাগোল্লা। কাঁচাগোল্লার নামের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের উত্তর বঙ্গের জেলা নাটোরের নামটি।

একদা নাটরের প্রসিদ্ধ লালবাজারের মধুসূদন পাল-এর মিষ্টির দোকানে কারিগর না আসায় দুশ্চিন্তায় পড়ে যান দোকানের মালিক। এরপরেও তিনি কর্মচারীদেরকে কাঁচা ছানাতে চিনির রস ঢেলে জ্বাল দিয়ে নামিয়ে রাখতে বলেন। অবশেষে সেই ছানা চেখে দেখে বিস্মিত হয়ে যান। এই কাঁচা ছানার মিষ্টির কথাই সে সময় কাঁচাগোল্লা নামে ঢোল পিটিয়ে চারপাশ জানানো হোতো।

মিহিদানা

১৯০৪ সালে বর্ধমানের মিষ্টি প্রস্ততকারক ভৈরবচন্দ্র নাগ সর্বপ্রথম মিহিদানা তৈরি করেছিলেন। বর্ধমানের ভূস্বামী বিজয়চাঁদ মহতাব বড়লাট জর্জ ন্যাথানিয়েল কার্জন-এর বর্ধমান ভ্রমণ স্মরণীয় করতে এই মিষ্টি বানানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন।

ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি বুন্দিয়ার আদলে তৈরি রঙ-বেরঙের এই চমৎকার মিষ্টিটি অবলীলায় ভোজনরসিকদের মন জয় করে নেয়। এর মুল উপাদান বেসন, ঘি, চিনি, জাফরান ও চাল হলেও এখন অনেক কারিগর এতে চিনির বদলে খেজুরের গুড়ও ব্যবহার করছেন।

পরিশিষ্ট

যুগ যুগ ধরে দুর্গাপূজার মিষ্টিগুলো বাঙালিয়ানাকে সমৃদ্ধ করেছে। আবহমান বাংলার ধর্মপ্রাণ মানুষগুলোর উপসনাকেন্দ্রিক অনুষ্ঠানগুলোতে করেছে প্রাণের সঞ্চার। এরকম আরও বহু মিষ্টান্নের আকর্ষণের জন্য এদের কারিগরেরা বেশ মর্যাদার আসনে আসীন হন। বর্তমানে যোগাযোগ মাধ্যমের উৎকর্ষের কারণে ঘরে ঘরে এ ধরণের মিষ্টি বানানোর রেসিপিও ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী। ফলে পৃথিবীর আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা প্রতিটি বাঙালির মিষ্টিমুখ অনুষ্ঠানে অবলীলায় জায়গা করে নিচ্ছে দুর্গাপূজার মিষ্টি।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail