• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

কিউবায় বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত শতাধিক

  • প্রকাশিত ০৩:১০ বিকেল মে ১৯, ২০১৮
কিউবার বিমান দুর্ঘটনা
বিমান দুর্ঘটনার স্থান পরিদর্শনে কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-কানেল

কিউবায় বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল কিউবাটিভি। শুক্রবার যাত্রী ও ক্রু মিলিয়ে ১১৪জন আরোহী নিয়ে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পর তা বিধ্বস্ত হয়। দুর্ঘটনার পর সেখান থেকে গুরুতর আহত তিনজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

কিউবার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা প্রেনসা লাতিনা জানিয়েছে, রাজধানী হাভানার জোস মার্টি বিমানবন্দর থেকে ১০৫ জন যাত্রী নিয়ে বিমানটি পূর্বাঞ্চলের হোলগুইন শহরে যাচ্ছিল। সংবাদ সংস্থাটির এক টুইটার অ্যাকাউন্টে প্রকাশিত ছবিতে দুর্ঘটনা স্থলে প্রচণ্ড ধোঁয়া দেখা গেছে। পাশেই অগ্নিনির্বাপণ কর্মী ও অ্যাম্বুলেন্সের তৎপরতাও দেখা গেছে।

এএফপি’র খবরে বলা হয়েছে, কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-কানেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় অনেক মানুষ হতাহত হয়েছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। দিয়াজ-কানেলকে উদ্ধৃত করে সংস্থাটি বলেছে, একটি দুর্ভাগ্যজনক বিমান দুর্ঘটনা ঘটেছে। খবর খুব ভাল নয়। অনেক মানুষ হতাহত হয়েছে। প্রেসিডেন্ট আরও জানিয়েছেন, যাত্রী ও ক্রু মিলিয়ে বিমানটিতে ১১৪ জন আরোহী ছিল। তাদের মধ্যে আহত তিনজনকে উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-কানেল আরও বলেন, বিধ্বস্তের ফলে লাগা নিভিয়ে ফেলা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ এখন দেহগুলো শনাক্ত করার কাজ করছে। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে।

রেডিও হাভানা কিউবা জানিয়েছে, বোয়িং-৭৩৭ মডেলের বিমানটি উড্ডয়নের কিছু সময় পর হাভানা ও বয়ারোসের মধ্যবর্তী একটি হাইওয়েতে অবতরণের চেষ্টা করছিল। স্থানটি হাভানা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে।

দামোঝ নামে মেক্সিকোর ছোট বিমান সংস্থার কাছ থেকে বিমানটি ভাড়া নিয়ে পরিচালনা করছিল এয়ারলাইন কিউবানা। দুর্ঘটনার ব্যাপারে কিউবানা রয়টার্সের কাছে কোনও মন্তব্য করতে চায়নি। তবে মেক্সিকো থেকে দামোঝের প্রতিনিধি বলেন, সঠিক তথ্য দেওয়ার জন্য আমরা তথ্য সংগ্রহ করছি।

শতাধিক নিহত হওয়ার কথা বলা হলেও তাদের জাতীয়তা সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানা যায়নি। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বিমানটির ক্রুরা বিদেশি বলে জানানো হলেও বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। সূত্র: রয়টার্স।