• রবিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৩ দুপুর

ইরানের মেঘ চুরি করছে ইসরায়েল!

  • প্রকাশিত ১২:৫৭ দুপুর জুলাই ৪, ২০১৮
iran-cloud
ইরানের আকাশ থেকে মেঘ চুরির অভিযোগ করেছেন জেনারেল জালালি। ছবি: সংগৃহীত

পার্শ্ববর্তী বিপক্ষ পরাশক্তি ইরানের আবহাওয়াকে ‘দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতিসাধনে’র উদ্দেশ্যে আকাশে ভাসা মেঘের উপর বিশেষ প্রযুক্তি ব্যাবহার করছে বলে অভিযোগ করেছেন দেশটির বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থার প্রধান গোলাম রেজা জালালি। তবে দেশটির আবহাওয়া দফতর থেকে জানিয়েছে, আবহাওয়াবিদ্যা অনুযায়ী বলতে পারি, তুষার ও মেঘ চুরি করা কোনও দেশের পক্ষে সম্ভব নয়।

পার্শ্ববর্তী বিপক্ষ পরাশক্তি ইরানের আবহাওয়াকে ‘দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতিসাধনে’র উদ্দেশ্যে আকাশে ভাসা মেঘের উপর বিশেষ প্রযুক্তি ব্যাবহার করছে বলে অভিযোগ করেছেন দেশটির বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থার প্রধান গোলাম রেজা জালালি। 

ইরানের আকাশসীমায় প্রবেশকারী মেঘ থেকে যেন বৃষ্টি না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য ইসরায়েলকে আরও একটি দেশ সহযোগীতা করছেন বলে তিনি জানান। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম ইসনা’র বরাত দিয়ে এএফপি প্রকাশ করেছে, কেবল মেঘই নয়, তুষারও চুরি হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন এ সরকারী কর্মকর্তা। 

তবে জালালির বক্তব্যের দায়ভার নেয়নি ইরানের আবহাওয়া দফতর। তাদের মতে, আবহাওয়াবিদ্যা অনুযায়ী কোনও দেশের পক্ষে তুষার ও মেঘ চুরি করা অসম্ভব। 

এর আগে ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ এমন মন্তব্য করেছিলেন। ২০১১ সালে তিনি অভিযোগ এনেছিলেন, ইউরোপীয় দেশগুলোতে বৃষ্টি ঝরিয়ে ইরানে ‘কৃত্রিম খরা’ সৃষ্টির জন্য প্রযুক্তি উদ্ভাবন করছে পশ্চিমারা। 

সাত বছর পর এবার জালালি দাবি করেন, “বিদেশি হস্তক্ষেপ জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। ইরানের আকাশসীমায় জড়ো হওয়া মেঘ থেকে যেন বৃষ্টি না হয়, তা নিশ্চিত করতে ইসরায়েল ও অন্য একটি দেশ পায়তারা করছে। আরও বড় বিষয় হলো, আমরা মেঘ ও তুষার চুরির শিকার হচ্ছি।”

তবে ইরানের আবহাওয়া দফতরের প্রধান আহাদ ভাজিফেই পুরোপুরি নাকচ করে না দিলেও সংশয় প্রকাশ করে বলেন, “জেনারেল জালালির কাছে হয়তো এমন কোনও তথ্য-উপাত্ত আছে, যা আমার জানা নেই। তবে আবহাওয়াবিদ্যা অনুযায়ী বলতে পারি, তুষার ও মেঘ চুরি করা কোনও দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। ইরান দীর্ঘদিন ধরে খরায় ভুগছে। এটা এমন এক সমস্যা যা কেবল ইরানেই নয়, পুরো বিশ্বেই ঘটছে।”