• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:৩১ দুপুর

ইন্দোনেশিয়ায় শরিয়া আইনে প্রকাশ্যে শাস্তি

  • প্রকাশিত ০৮:০২ রাত জুলাই ১৬, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট ০৮:২৯ রাত জুলাই ১৬, ২০১৮
indo-shariah-jpg-m-1531749310804.jpg
ইন্দোনেশিয়ায় প্রকাশ্যে শাস্তি। ছবি: সংগৃহীত

অভিযুক্তদের মধ্যে দুই জন পুরুষকে সমকামিতার অভিযোগে ৮৭ বার বেত্রাঘাত, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগে ৯ জনকে সর্বোচ্চ ২৬টি করে বেত্রাঘাত, চারজনকে মদ খাওয়ার দায়ে ২৭টি বেত্রাঘাত করা হয়।

ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশে ১৫ জনকে প্রকাশ্যে শরিয়া আইন মোতাবেক শাস্তি দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে পাঁচজন ছিলেন নারী। 

শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর শিশু-সহ শত শত মানুষের উপস্থিতিতে  অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া হয়। প্রকাশ্যে শাস্তি প্রদান দেখার জন্য উপস্থিত জনগণ অভিযুক্তদের ধিককার জানায়। মার্কিন এক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ইন্দোনেশিয়ার  আচেহর রাজধানী বান্দা আচেহর বাইতুররাহিম মসজিদের সামনে এই শাস্তি কার্যকর করা হয়।

অভিযুক্তদের মধ্যে দুই জন পুরুষকে সমকামিতার অভিযোগে ৮৭ বার বেত্রাঘাত, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগে ৯ জনকে সর্বোচ্চ ২৬টি করে বেত্রাঘাত, চারজনকে মদ খাওয়ার দায়ে ২৭টি বেত্রাঘাত করা হয়। অভিযুক্তদের ঐতিহ্যবাহী সাদা রঙের কোকো শার্ট পরানো হয়েছিল। বেত্রাঘাতের সংখ্যা মাইকে ঘোষণা করা হচ্ছিল। 

এক পর্যায়ে একজন ইউনিফরম পরা কর্মকর্তাকে দেখা যায় বেত্রাঘাত কার্যকরকারীকে কোথায় কোথায় বেত মারতে হবে শিখিয়ে দিতে। 

ইন্দোনেশিয়ার অঞ্চলগুলোর মধ্যে আচেহ প্রদেশ একটু ভিন্ন। ২০১৫ সাল থেকে ইন্দোনেশিয়ার ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে শুধু আচেহ প্রদেশেই আইনভাবে বৈধ শরিয়া শাসন রয়েছে। মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, শরিয়া আইনের কারণে আচেহ প্রদেশে লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল ও ট্রান্সজেন্ডারদের (এলজিবিটি) নিরাপত্তা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা চরমভাবে ক্ষুণ্ন হচ্ছে। তাদেরকে সর্বক্ষণ ভীতিকর পরিবেশের মধ্যে থাকতে হয়।

উল্লেখ্য, আচেহ প্রদেশের গভর্নর আইন জারি করেছিলেন, এরকম শারীরিক শাস্তি প্রকাশ্যে দেওয়া যাবে না; কারাগারের ভেতরে দিতে হবে। কিন্তু বান্দা আচেহর শরিয়া পুলিশের  প্রধান মোহাম্মদ হিদায়াত জানিয়েছেন, গভর্নরের আদেশে বিস্তারিতভাবে কিছু বলা না থাকায় প্রকাশ্যেই শাস্তি কার্যকর করা হয়েছে।