• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:১৯ রাত

‘ভুল’ স্বীকার করলেন ট্রাম্প!

  • প্রকাশিত ০৭:৩২ রাত জুলাই ১৯, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট ০৭:৩৪ রাত জুলাই ১৯, ২০১৮
trump-1532006079011.jpg
মার্কিন গোয়েন্দাদের তদন্ত প্রতিবেদনে ‘আস্থাশীল’ নন ট্রাম্প। ছবি: সংগৃহীত

সমালোচনা এড়াতে বৈঠকের একদিনের মাথায় নিজের বক্তব্য পাল্টে ‘ভুল’ স্বীকার করলেন ট্রাম্প।

ফের নিজ দেশে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিনকিতে গত সোমবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠক ও বৈঠক পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তাঁর বক্তব্য নিয়েই এই তীব্র সমালোচনার ঝড় উঠেছে। 

তবে মজার ব্যাপার সেই সমালোচনা এড়াতে বৈঠকের একদিনের মাথায় নিজের বক্তব্য পাল্টে ‘ভুল’ স্বীকার করলেন ট্রাম্প।

গতকাল মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে আয়োজিত ডোনাল্ড ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলনের সূত্র ধরে রয়টার্স এ কথা জানায়।

২০১৬ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ছিল-মার্কিন গোয়েন্দাদের এমন প্রতিবেদনের পরও হেলসিনকিতে বৈঠক পরবর্তী যৌথ সংবাদ সম্মেলনে সে বিষয়ে কেন পুতিনকে যথাযোগ্য জবাদিহিতা করা হয়নি,এ নিয়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে রীতিমতো সমালোচনার ঝড় বইছে যুক্তরাষ্ট্রে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপ বিষয়ে পুতিনকে জবাদিহিতা করার বদলে ট্রাম্প উল্টো মার্কিন গোয়েন্দাদের তদন্ত প্রতিবেদনের প্রতি অনাস্থা এনে বলেন ‘রাশিয়া কেন এমন কাজ করবে?’ এমনকি তিনি এর যথাযোগ্য কারণ খুঁজে পান না বলেও জানান। একই সঙ্গে এটাও জানান যে, তিনি মার্কিন গোয়েন্দাদের তদন্ত প্রতিবেদনে ঠিক ‘আস্থাশীল’ নন।

হেলসিনকিতে দেওয়া এই বক্তব্যের ২৭ ঘণ্টার মাথায় হোয়াইট হাউজের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন “আমি আসলে ভুল বাক্য বলেছিলাম, নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বিষয়ে ‘এটা রাশিয়া না হওয়ার কোনো কারণ দেখি না’ বলার জায়গায় ভুলে ‘এটা রাশিয়া হওয়ার কোনো কারণ দেখি না’ বলে ফেলেছি।”

পুতিনের সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে প্রকাশ্যে পুতিনকে আচ্ছা গালমন্দ করার মোক্ষম সুযোগ পেলেও তা কাজে না লাগিয়ে বরং নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ স্পষ্টভাষায় প্রত্যাখ্যান করেন ট্রাম্প। শুধু কি তাই? পুতিনের ব্যাপারে প্রশংসা করতেও ভুল করেননি মার্কিন এই প্রেসিডেন্ট। 

সমালোচক,মিত্র দেশ এমনকি নিজ প্রশাসনের লোকদের সমালোচনার চাপের মুখেও ট্রাম্প মস্কো বিষয়ে  প্রকাশ্যে একটি সমালোচনামূলক বাক্যও উচ্চারণ করেননি।

এসব ভুলের দিকে নজর না দিয়ে বরং নিজের বিরুদ্ধে চলমান সমালোচনার আগুন নেভাতে গতকাল হোয়াইট হাউজে সংবাদ সম্মেলন ডেকে একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এ সময় তিনি আগের সুর সম্পূর্ণ পাল্টে বলেন, মার্কিন গোয়েন্দাদের ওপরে তাঁর আস্থা আছে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বিষয়ে তিনি তাঁদের তদন্তকে গ্রহণযোগ্য বলে মনে করেন।

কিন্তু কাগুজে বক্তব্যের বাইরে নির্বাচনে হস্তক্ষেপ বিষয়ে বলতে গিয়ে কিছুটা পরোক্ষভাবে ট্রাম্প বলেন,‘তবে এটি আর কেউও হতে পারে। আরো অনেকেই আছে যারাএমন কাজ করতে পারে।’

বলা বাহুল্য পুতিনের সঙ্গে বৈঠক শেষে দেশে ফিরে শুধু হোয়াইট হাউজে সংবাদ সম্মেলন করে নিজের বিরুদ্ধে অব্যাহত সমালোচনা থামাতে পারছেন না ট্রাম্প। গতকাল হোইয়াট হাউজে দেওয়া তাঁর বক্তব্য খারিজ করেছেন দিয়েছেন বিরোধী শিবির ডেমোক্র্যাটরা।

জ্যেষ্ঠ ডেমোক্র্যাট সদস্য অ্যাডাম স্কিফ বলেন,‘পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের নিজের ভুলের ফলে চলমান সমালোচনা ঠেকাতে সুর বদল করে দেওয়া এই বক্তব্য একটা ব্যর্থ প্রচেষ্টা,এমন বক্তব্য দিয়েও যে ক্ষতি ইতোমধ্যে হয়ে গেছে তা পোষানো যায় না।’

হোইয়াট হাউজের সংবাদ সম্মেলন প্রসঙ্গে সিনেটর ও ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমার বলেন,“মঙ্গলবারে ট্রাম্পের দেওয়া বক্তব্য তাঁর দুর্বলতার আরেকটি লক্ষণ, যেমন তিনি (নির্বাচনে হস্তক্ষেপ বিষয়ে রাশিয়াকে সরাসরি দোষারোপ না করে) বক্তব্যে বলছিলেন,‘এটি আর কেউও হতে পারে’।

চাক শুমার আরো বলেন, ‘তিনি নিজের ভুল শুধরানোর চেষ্টা করলেও আসলে তা শোধরাতে পারেননি। কোনো প্রেসিডেন্টের জন্য এটি খুবই দুর্বলতার বিষয় যে,তিনি সরাসরি পুতিনের মুখোমুখি হতে ভয় পাচ্ছেন।’