• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৫ রাত

চাপের মুখে পতাকা অর্ধনমিত করলেন ট্রাম্প

  • প্রকাশিত ০৫:৪৬ সন্ধ্যা আগস্ট ২৮, ২০১৮
Half-staff white house flag
প্রয়াত সিনেটর জন ম্যাককেইনের সম্মানে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা অর্ধনিমিত করা হয়েছে। ছবি: রয়টার্স

প্রবল সমালোচনার মুখে পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দিতে বাধ্য হয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মঙ্গলবার চাপের মুখে প্রয়াত রাজনীতিবিদ জন ম্যাককেইনের সম্মানে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা অর্ধনমিত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রিপাবলিকান সিনেটর জন ম্যাককেইনের মৃত্যুর পর শনিবার কিছুক্ষণের জন্য পতাকা অর্ধনমিত ছিল। পরে আবার তা আগের রূপে ফিরে আসে এবং সোমবার পর্যন্ত হোয়াইট হাউজ ও অন্যান্য সরকারি কার্যালয়ে পতাকা আর অর্ধনমিত করা হয়নি। 

এর মধ্যেই আবার রাজনীতিবিদ জন ম্যাককেইনের জন্য লেখা হোয়াইট হাউজের আনুষ্ঠানিক বিবৃতি বাতিল করেন ট্রাম্প। সবমিলিয়ে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েন মার্কিন এই প্রেসিডেন্ট।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, প্রবল সমালোচনার মুখে পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দিতে বাধ্য হয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

পতাকা অর্ধনমিত করার নির্দেশের বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেছেন, “আমাদের মতামত ও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে পার্থক্য থাকা স্বত্ত্বেও, সিনেটর জন ম্যাককেইন আমাদের দেশের জন্য যে অবদান রেখেছেন, সেগুলোর প্রতি শ্রদ্ধা রয়েছে আমার।”    

উল্লেখ্য, সিনেটর জন ম্যাককেইন ও ট্রাম্পের মতপার্তক্য ও দৃষ্টিভঙ্গিতে প্রবল পার্থক্য ছিল এবং ম্যাককেইন ছিলেন ট্রাম্পের কট্টোর সমালোচক। ৮১ বছর বয়সে ম্যাককেইন ক্যান্সারে মৃত্যুবরণ করার পর হোয়াইট হাউজের তৈরি আনুষ্ঠানিক বিবৃতি বাতিল করে, টুইটারে দুই লাইনের শোকবার্তা প্রকাশ করেন ট্রাম্প। কারণ হোয়াইট হাউজ বিবৃতিতে ম্যাককেইনকে ‘নায়ক’ সম্বোধন করা হয়েছিল। আর ট্রাম্পের ভাষ্যে, ম্যাককেইন ভিয়েতনাম যুদ্ধে আটক হয়ে নির্যাতিত হয়েছিলেন, এজন্য তাকে নায়ক বলা যায় না। অথচ বিবিসি’র প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, স্বয়ং ট্রাম্প ভিয়েতনাম যুদ্ধের দায়িত্ব এড়িয়েছেন শিক্ষাগত যোগ্যতা ও শারীরিক সমস্যা দেখিয়ে।