• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৫ রাত

বিমস্টেক সম্মেলনে ৫০ বিলিয়ন ডলারের প্রকল্পে ঐক্যমত পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের

  • প্রকাশিত ০৩:৪৫ বিকেল আগস্ট ৩০, ২০১৮
Bimstec Summit: Foreign ministers agree on projects worth $50b
বিমস্টেক সদস্য রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। ছবি: সংগৃহীত

১৬৭টি প্রকল্পে সম্মতি জানিয়েছেন সাতটি সদস্য রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন হওয়ার কথা রয়েছে এই পরিকল্পনার।

বিমস্টেকের সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে সংযুক্ত করার বৃহৎ পরিকল্পনার আওতায় কানেকটিভিটি সম্পর্কিত ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ১৬৭টি প্রকল্পে সম্মতি জানিয়েছেন সাতটি সদস্য রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।  

এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের বিস্তারিত স্ট্যাডির পর বিমস্টেক মন্ত্রীরা অন্ততপক্ষে নীতিগতভাবে প্রকল্পগুলোতে সম্মতি দেন এমন তথ্য জানিয়েছে নেপালের কাঠমন্ডু পোস্ট।   

নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ গাইওয়ালী দেশটির ইংরেজি দৈনিককে বলেন, সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সংযোগ স্থাপনে বিমস্টেক ট্রান্সপোর্ট কানেক্টিভিটি মাস্টার প্ল্যান নিয়ে কাজ করছেন তারা। এ বছর সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন হওয়ার কথা রয়েছে এই পরিকল্পনার। 

প্রদীপ গেওয়ালি জানান, এই বিশাল পরিকল্পনায় অনেকগুলো দাতা সংস্থা আগ্রহী। এই প্রকল্পগুলো পরিচালনার জন্য আমরা এডিবি, বিশ্বব্যাংকসহ বেশকিছু সংস্থার কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েছি। 

এডিবি স্টাডির মধ্যে রয়েছে- ক্রস বর্ডার সুবিধাদি, মাল্টিমডাল পরিবহন ও সরবরাহ, অবকাঠামো উন্নয়ন, এভিয়েশন, সমূদ্র পরিবহন, মানব সম্পদ উন্নয়ন এবং যোগাযোগ নেটওয়ার্কের উন্নয়ন।

২০১৪ সালে বিমসটেক ট্রান্সপোর্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার অ্যান্ড লজিস্টিক স্টাডি নামের প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ১৬৭টি প্রকল্পের মধ্যে ৬৬টি প্রকল্পে জোর দেওয়া হয় তাতে। 

মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে নেপারের মন্ত্রী গাইওয়ালী সদস্য দেশগুলোকে কানেকটিখিভটি, বাণিজ্য, পর্যটন, বিদ্যুৎ এবং কৃষিতে গুরত্ব দেয়ার ওপর জোর দিয়েছেন। 

মন্ত্রী পর্যায়ের এই বৈঠকে গেওয়ালি সদস্য রাষ্ট্রগুলোর পারষ্পরিক সহযোগিতা নিয়ে গভীরভাবে কাজ করার ব্যাপারে জোর দিয়েছেন এবং বাকি মন্ত্রীদের যোগাযোগ, বাণিজ্য, পর্যটন, জ্বালানি ও কৃষিখাতে জোর দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

সদস্য রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনের খসড়া রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছে পাঠানোর কথা বলেন। বিমসটেকের নিয়মানুযায়ী নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই সংস্থার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। সেখানেই আগামী বছর ১৭তম মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।