• বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৩ রাত

এমিরেটসের বিমানে অসুস্থ ১৯ আরোহী

  • প্রকাশিত ১০:৫৬ সকাল সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮
এমিরেটস এয়ারলাইন্স
দুবাই থেকে নিউইয়র্কগামী এমিরেটসের একটি বিমানে যাত্রাপথে ১৯ আরোহী অসুস্থ হয়ে পড়েন। ছবিঃ সিবিএস।

এর মধ্যে ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং বাকি ৯ জনকে প্রথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। 

গতকাল দুবাই থেকে নিউইয়র্কগামী এমিরেটসের একটি বিমানে  যাত্রাপথে ১৯ আরোহী অসুস্থ হয়ে পড়েন। নিউইয়র্ক মেয়রের কার্যালয় থেকে খবরের সত্যতা নিশ্চিত করা হয়েছে। 

বিমানটি ৫২১ যাত্রী নিয়ে গতকাল সকালে জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে অবতরণ করে। 

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র সিডিসি বিমানের ভেতরে থাকা আরোহীদের মধ্যে প্রায় ১০০ জনের অসুস্থতার খবর জানালেও এমিরেটসের পক্ষ থেকে ১০ জনের অসুস্থতার কথা বলা হয়। 

সর্বশেষ, নিউইয়র্ক মেয়রের কার্যালয় থেকে ১৯ জনের অসুস্থতার তথ্য জানানো হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং বাকি ৯ জনকে প্রথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলেও মেয়রের কার্যালয় থেকে অবহিত করা হয়। 

এমিরেটসের টুইটার একাউন্ট থেকে জানানো হয়েছে যে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ১০ জনের মধ্যে ৭ জন ক্রু এবং বাকি ৩ জন যাত্রী। 

এদিকে, এবিসি নিউজের খবরে বলা হয় যে অবতরণের আগেই পাইলট আরোহীদের অসুস্থতার খবর সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। বিমানটিতে থাকা এক যাত্রীর টুইট থেকে জানা যায় যে যাত্রীদের অনেকেই কাশছিলেন এবং তাদের অধিকাংশেরই শরীরের তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রী ফারেনহাইটের উপরে ছিল। 

আরেক যাত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘বিমানটি উড্ডয়নের আগেই বহু মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ে। বিমান ছাড়ার আগেই আমি বিমানবালার কাছ থেকে মাস্ক চেয়েছিলাম। কিন্তু মাস্ক ছিল না। বিমানটি উড্ডয়নের পর ক্রুরাও অসুস্থ হয়ে পড়েন। এই অবস্থায় বিমানটির কোনভাবেই যাত্রা চালিয়ে যাওয়া উচিৎ হয়নি’। তবে, এই ঘটনাটি বাদে পুরো ভ্রমণ নির্বিঘ্ন ছিল বলেও তিনি জানান।

এদিকে, বিমানটি অবতরণের সাথে সাথে বিভিন্ন জরুরি বিভাগের গাড়ি রানওয়েতে জড়ো হতে শুরু করে। এসময় জরুরি বিভাগের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক বিমানটিতে থাকা যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর তাদের ছেড়ে দেন। 

বিরল এই ঘটনাটির আসল কারণ না জানা গেলেও মেয়রের মুখপাত্র বলেছেন‘কয়েকজন যাত্রী আসছিলেন সৌদি আরবের মক্কা শহর থেকে। সেখানে ফ্লুর সংক্রমণ ঘটেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। এটি একটি সম্ভাব্য কারণ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে’। 

বিমানটিকে আপাতত আলাদাভাবে সরিয়ে রাখা হয়েছে সম্ভাব্য সংক্রমণ প্রতিহত এবং যান্ত্রিক পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য।