• বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৩ রাত

প্রাণ বাঁচাল সেলফি!

  • প্রকাশিত ০৬:০৫ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮
Selfie
প্রাণ বাঁচানোর জন্য হাতে ছিল মাত্র চারটি ঘন্টা। ছবি: সংগৃহীত

প্রাণ বাঁচানোর জন্য হাতে রয়েছে মাত্র চারটি ঘন্টা। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল সেলফি!

সেলফি জনপ্রিয় হলেও, সবাই যে বিষয়টিকে খুব একটা ভালো চোখে দেখেন তা নয়। সেলফি তুলতে গিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রাণ হারানো মানুষের সংখ্যাটাও নেহায়েত কম নয়। তবে এই সেলফির কারণেই এ যাত্রা বেঁচে গেলেন এক নারী। 

মূলধারার সংবাদমাধ্যমগুলোতে ঘটনাটি সেভাবে না এলেও, স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যমের জানা গেছে ওই ঘটনা সম্পর্কে, এমনকি প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট টেকটাইমসের প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে ঘটনাটি। চলুন জেনে নেওয়া যাক কী ঘটেছিল সেদিন,

নিজের ফেইসবুক প্রোফাইলের জন্য সেলফি তুলছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের নারী জুয়ানিতা ব্রাঞ্চ। হুট করেই খেয়াল করলেন তার তোলা একাধিক সেলফিতে যে ছবি উঠেছে, তা ঠিক স্বাভাবিক নয়। শরীরে যদিও কোনও ব্যথা অনুভব করছিলেন না তিনি, তারপরেও চেহারার বিকৃতি ঠিকই ফুঁটে উঠেছে ছবিতে। দেরি না করে, দ্রুত সাহায্যের জন্য ফোন করেন তিনি। কারণ এর আগে ২০১৬ সালে মাঝারি ধরনের স্ট্রোক হয়েছিল তার, তাই এর উপসর্গগুলো সম্পর্কে জানা ছিল জুয়ানিতার।

সাহায্য যতক্ষণে জুয়ানিতার কাছে পৌঁছেছে, ততক্ষণে পুরোপরি ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন তিনি। এদিকে ডাক্তারদের দ্রুত চিকিৎসার জন্য স্ট্রোকের সময় জানাটা ছিল খুবই জরুরি, প্রাণ বাঁচানোর জন্য হাতে রয়েছে মাত্র চারটি ঘন্টা। এবারেও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল সেলফি! টেকটাইমসের তথ্য অনুযায়ী, ডাক্তাররা স্ট্রোকের সময়টি বের করতে পেরেছিলেন, সেলফিগুলো কখন তোলা হয়েছে, সেটির উপর নির্ভর করে।

ডাক্তাররা পরবর্তীতে জানিয়েছেন, ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনও মানুষ নিজের স্ট্রোকের উপসর্গ সেলফি দেখে বুঝতে পেরেছেন। সাধারণত এক্ষেত্রে অন্যরা উপসর্গগুলো চিহ্নিত করে থাকে।