• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০৭ রাত

মন্ত্রী আমলাদের ‘রুটিতে মারছেন’ ইমরান!

  • প্রকাশিত ০৯:২৪ রাত সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ছবি: রয়টার্স

ধার দেনায় ডোবা পাকিস্তানের আমলাদের জুটছে কেবল বিস্কুট-কুকিজ।

ধার দেনায় ডুবে আছে পাকিস্তান সরকার। তাই ‘আধপেটা’তেই দিন পার করতে হচ্ছে পাকিস্তানের মন্ত্রী আমলাদের। এমনকি দুপুরের ভাতও জুটছে না কপালে। বৈঠকের ফাঁকে শুধু বিস্কুট-কুকিজ জুটছে। অথচ সরকারি বৈঠকে ভূরিভোজের ব্যবস্থা থাকত আগে।

এ সবই হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নির্দেশে। উদ্দেশ্য ব্যয় সঙ্কোচ করা।

এতো গেল খানা-দানার কথা। এতদিন সরকারি কাজে যেসব বিলাসবহুল গাড়ি, হেলিকপ্টার ব্যবহৃত হত, সেগুলিকেও ছেঁটে দিচ্ছেন ইমরান।

সম্প্রতি বিএম ডব্লিউ, বুলেটপ্রুফ মার্সিডিজ-সহ প্রায় ১০০টি  দামি গাড়িসহ কয়েকটি পুরনো হেলিকপ্টার নিলামে তোলেন। নওয়াজ শরিফের আমল থেকে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে থাকা ৮টি মহিষও বিক্রি করার প্রস্তুতি চলছে।

এতো কিছুর পরেও প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে, সম্ভব হবে এতসব ধার-দেনা মেটানো?

সে দেশের অর্থনীতিবিদদের দাবি, দুর্নীতিমুক্ত সরকার গড়বেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রাক্তন ক্রিকেট তারকা। তাই লোক দেখাতে মন্ত্রী-আমলাদের ভাতে মেরেছেন। গাড়ি-কপ্টার বিক্রি করছেন। যাতে মানুষ বিশ্বাস করেন যে, তিনি প্রতিশ্রুতি পালন করছেন। তবে এভাবে দেশের অর্থ সঙ্কট দূর করা যায় না।

মঙ্গলবারই ২ লক্ষ ৯০ হাজার কোটি বাজেট ঘাটতির কথা প্রকাশ করেন পাক অর্থমন্ত্রী আসাদ উমর। যে গাড়িগুলি নিলামে উঠেছে, সেগুলির বেশিরভাগই মান্ধাতা আমলের। প্রায় ৩০-৩২ বছর পুরনো। সেগুলি বিক্রি করে খুব বেশি হলে ২৫-৩০ কোটি টাকা আসবে। বিপুল পরিমাণ ঘাটতি মেটাতে তা কোনও কাজে আসবে না।

ইমরানের জীবন যাত্রা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। ইসলামাবাদে পাহাড়ের ওপর ৩৮ একর জুড়ে নিজের প্রাসাদোপম অট্টালিকায় থাকেন তিনি। পাহাড়ের গা বেয়ে ওঠা রাস্তা থেকে তাঁর বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ৫০০ নিরাপত্তা রক্ষী মোতায়েন থাকে ২৪ ঘণ্টা। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের দূরত্ব মোটে ১৪ কিলোমিটার। 

উল্লেখ্য, ওইটুকু দূরত্ব পেরোতেই গত মাসে হেলিকপ্টার ব্যবহার করেছিলেন ইমরান। এরপর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয় তাঁকে।

এর বাইরেও নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে চলেছে ইমরান খানের সরকার। কারণ  পাকিস্তানের বর্তমানের জনসংখ্যার (প্রায় ২০ কোটি) মাত্র ১ শতাংশ নিয়মিত আয়কর রিটার্ন জমা দেয়। খুব শিগগির আইএমএফ থেকেও বেরিয়ে যেতে হতে পারে তাদের। এমনিতেই সন্ত্রাস দমনে উদ্যোগ না নেয়ার কারণ তাদের ওপর এতোটাই ক্ষেপে আছে মার্কিন সরকার যে সামরিক অনুদান বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাই হাত পাতার উপায়ও নেই তাদের সামনে। 

এমন পরিস্থিতিতে তাদের ভরসা একমাত্র চীন ও সৌদি আরব। হয়তো এ কারণে মঙ্গলবারই দু’দিনের সৌদি সফরে বেরিয়ে গিয়েছেন ইমরান খান।