• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:২৮ রাত

সুকির নাগরিকত্ব কেড়ে নিল কানাডা

  • প্রকাশিত ০৭:১৭ রাত অক্টোবর ৩, ২০১৮
অং সান সুকি
অং সান সুকিকে দেওয়া সম্মানজনক নাগরিকত্ব বাতিল করেছে কানাডা সরকার। ছবি: এএফপি।

রোহিঙ্গাদের উপর মায়ানমার সেনাবাহিনীর চালানো গণহত্যায় সুকির বিতর্কিত ভূমিকার কারণে প্রথমবারের মত কানাডা কাউকে সম্মানজনক নাগরিকত্ব দিয়ে পরে বাতিল করলো।

অং সান সুকিকে দেওয়া সম্মানজনক নাগরিকত্ব বাতিল করেছে কানাডা সরকার। গত মঙ্গলবার রোহিঙ্গাদের উপর মায়ানমার সেনাবাহিনীর চালানো গণহত্যায় সুকির বিতর্কিত ভূমিকার কারণে প্রথমবারের মত কানাডা কাউকে সম্মানজনক নাগরিকত্ব দিয়ে পরে বাতিল করলো। 

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে হাউজ অফ কমনসের নিম্নকক্ষ সুকির নাগরিকত্ব বাতিলের জন্য ভেটো দিয়েছিল। এর প্রেক্ষিতে কানাডার সিনেটে এই প্রস্তাব পাস করা হলে আনুষ্ঠানিকভাবে সুকির নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে অং সান সুকিকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেছিল হাউস অফ কমনস। পরবর্তী সময়ে রোহিঙ্গা ইস্যূতে তার বিতর্কিত ভূমিকার জন্য তার আন্তর্জাতিক খ্যাতি প্রশ্নের মুখে পড়ে।

উল্লেখ্য, গত সেপ্টেম্বরে আইন পাসের মাধ্যমে মায়ানমার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে রাখাইন প্রদেশে চালানো এই অভিযানকে গণহত্যা হিসেবে অভিহিত করে কানাডার আইনজীবীরা।

প্রসঙ্গত, এই অভিযানের ফলে প্রায় ৭ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে শরনার্থী হিসেবে প্রবেশ করে। বর্তমানে তারা বাংলাদেশে স্থাপিত রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। শরনার্থীরা বিচার বহির্ভূত হত্যা, ধর্ষণ এবং অগ্নি সংযোগের অভিযোগ তুলেছেন মায়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে। এই সব দুঃসহ স্মৃতি তাদেরকে শংকিত করে তোলে এখনও।  

এমনকি দুই দেশের মধ্যস্থতার মাধ্যমে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেও দেশে ফেরার ব্যাপারে রোহিঙ্গা শরনার্থীরা এখনও শংকিত। তারা তাদের নিজেদের দেশে ফিরতে অনিরাপদ বোধ করছেন।

উল্লেখ্য, এর আগে কানাডা মাত্র ৫ জন ব্যক্তিকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেছিল। তবে এবারই প্রথম তারা কাউকে দেওয়া সম্মানজনক নাগরিকত্ব ফিরিয়ে নিল।

সূত্র: সিএনএ।