• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৯ রাত

খাশোগির নিখোঁজের দিনের সিসিটিভি ফুটেজ গায়েব

  • প্রকাশিত ০৭:১৯ রাত অক্টোবর ১০, ২০১৮
জামাল খাসোগজি
নিহত সাংবাদিক জামাল খাসোগজি। ছবি: এএফপি (ফাইল ছবি)।

শুধু তাই নয়, ঐ দিন দূতাবাসের সকল তুর্কি কর্মীদেরও ছুটি দেওয়া হয়

বিখ্যাত সৌদি সাংবাদিক-সমালোচক জামাল খাশোগি নিখোঁজ হওয়ার দিনের সিসিটিভি ফুটেজ তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি দূতাবাস থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের তদন্ত কর্মকর্তারা। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের একটি প্রতিবেদনে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। 

শুধু তাই নয়, ঐ দিন দূতাবাসের সকল তুর্কি কর্মীদেরও ছুটি দেওয়া হয়। তুরস্কের উচ্চপদস্থ তদন্ত কর্মকর্তারা ধারণা করেছিলেন আগে থেকেই সৌদি দূতাবাসে খাশোগিকে খুন কিংবা অপহরণের জন্য ঘাপটি মেরে লুকিয়ে ছিল সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় কিলিং স্কোয়াড বা খুনি বাহিনী। তবে, সৌদি কর্তৃপক্ষ তদন্ত কর্মকর্তাদের এই দাবী শুরু থেকেই অস্বীকার করে আসছে। তবে, এই ঘটনার কোন কারণ ব্যাখ্যা করতে সৌদি কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ন ব্যর্থ হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২ অক্টোবর বিয়ে করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করতে ইস্তাম্বুলের সৌদি দূতাবাসে প্রবেশ করেন জামাল খাশোগি। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।

এদিকে শুরুর দিকে এই ঘটনায় সৌদি কর্তৃপক্ষের দিকে অভিযোগের আঙুল তুললেও এখন আর সৌদি আরবকে দোষারোপ করতে চাইছেন না তুরস্কের কর্মকর্তারা। সৌদি আরবের সঙ্গে জ্বালানি তেলের ব্যবসা ও আঞ্চলিক সম্পর্ক অক্ষুণ্ন রাখতেই তারা এখন তাদের আগের অবস্থান থেকে সরে এসেছেন বলে মত বিশেষজ্ঞদের। যদিও ক্ষমতাসীন দলের নেতারা এই ঘটনা নিয়ে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যেই তাদের মতামত দিচ্ছেন।

কিন্তু, এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক নেতাই দূতাবাসের ভেতরের ঐদিনের কোনও ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করার আহ্বান জানাননি। এমনকি, যেসব কর্মকর্তারা আগের তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে আশার আলো দেখিয়েছিলেন তারাও এখন আর মুখ খুলছেন না। এর পাশাপাশি সৌদি আরবকে দোষারোপ করা হয়নি বলেও তুরস্কের রাষ্ট্রপতির কার্যালয় সূত্রে বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে।

তবে, গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তদন্ত কর্মকর্তারা ব্যক্তিগতভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের কূটনীতিকদের কাছে বলেছেন যে, তারা এখনও বিশ্বাস করেন যে খাশোগি খুন হয়েছেন। 

খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার পেছনে ভূমিকার কথা অস্বীকার করলেও সৌদি কর্তৃপক্ষ শনিবার ইস্তাম্বুলে তাদের একটি নিরাপত্তা প্রতিনিধি দলকে পাঠিয়েছে বলে জানিয়েছে। কিন্তু, কেন এই নিরাপত্তা প্রতিনিধি দলকে পাঠানো হয়েছিল সে সম্পর্কে তারা কিছু জানায়নি।

উল্লেখ্য, একসময় সৌদি রাজপরিবারের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করা জামাল খাশোগি সৌদি রাজপরিবারের কঠোর সমালোচক ছিলেন। ২০১৭ সাল থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছায় নির্বাসনে ছিলেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টে কর্মরত ছিলেন।