• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৯ রাত

‘ঈশ্বরের আদেশে’ ধর্ষণ, আদালতের আদেশে কারাদণ্ড

  • প্রকাশিত ০৬:১৭ সন্ধ্যা নভেম্বর ২২, ২০১৮
জয়ারেক লি
ঈশ্বরের দোহাই দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে খ্রিস্টান ধর্ম প্রচারক জায়েরক লি'কে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার আদালত। ছবি: এএফপি।

অভিযুক্ত জায়েরক লি’র বয়স ৭৫ বছর

ঈশ্বরের দোহাই দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে এক প্রভাবশালী খ্রিস্ট ধর্মীয় প্রচারককে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত।বৃহস্পতিবার, আট জন নারী ভক্তের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের দায়ে আদালত ঐ ব্যক্তিতে এই শাস্তি দেয় বলে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের একটি খবরে বলা হয়েছে।

জানা গেছে ধর্ষণের সময় ঐ ব্যক্তি, তার কাজকে ঈশ্বরের আদেশ বলে দাবী করতো যে কারণে ধর্ষণের শিকার হওয়া ব্যক্তিরা ধর্ষণের সময় কোন বাঁধা দিত না। উল্লেখ্য, অভিযুক্ত জায়েরক লি’র বয়স ৭৫ বছর।

আদালতের রায়ে বলা হয়, “ভুক্তভোগীরা ছেলেবেলা থেকে সংশ্লিষ্ট চার্চের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তাদের বিশ্বাস ছিল, লি একজন ঈশ্বরতুল্য ব্যক্তি যে তাদেরকে স্বর্গে নিয়ে যাবে। পরিস্থিতিদৃষ্টে মনে হচ্ছে, ভুক্তভোগীরা লির বিরুদ্ধে কোনও প্রতিরোধ গড়ে তোলার বিষয়ে মানসিকভাবে শক্তিহীন হয়ে পড়েছিলেন। আর লি তাদের ভক্তির সুযোগে অপরাধ সংগঠিত করেছে”। 

অবশ্য দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি এই ঘটনার আগে থেকেই বিতর্কিত বিভিন্ন কাজের জন্য সমালোচিত হয়েছেন। এর আগে জায়েরক লি নিজেকে সব পাপের উর্ধ্বে থাকা মহামানব এবং অমর বলে দাবী করে আলোচিত হয়েছিলেন। এর প্রেক্ষিতে ১৯৯৯ সালে ‘ক্রিশ্চিয়ান কাউন্সিল অব কোরিয়া’ তাকে বহিষ্কার করে।

প্রসঙ্গত, ভক্তদের সাথে জায়েরক লি’র যৌনকর্ম নিয়ে দুই দশক ধরে আলোচনা-সমালোচনা হলেও এবারই প্রথম তাকে এই অভিযোগে শাস্তি প্রদান করা হলো। ১৯৯৯ সালে লি’র বিরুদ্ধে সমালোচনামূলক অনুষ্ঠান প্রচার করায় তার ভক্তরা দেশটির প্রায় ৩০০টি টেলিভিশন চ্যানেলের অফিসে ভাঙচুর চালিয়েছিল।