• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৪ রাত

ট্রাম্পের কাছে ইউক্রেন পরিস্থিতি তুলে ধরলেন পুতিন

  • প্রকাশিত ১১:২৬ রাত ডিসেম্বর ২, ২০১৮
ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ভ্লাদিমির পুতিন
ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: এএফপি (ফাইল ছবি)।

শুক্রবার সম্মেলনে নেত্রীবৃন্দের নৈশভোজকালে ট্রাম্পের কাছে ইউক্রেন পরিস্থিতি তুলে ধরেন পুতিন

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে ইউক্রেন পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

আর্জেন্টিনায় জি ২০ সম্মেলনে মস্কোর আগ্রাসী পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে পুতিন প্রচন্ড চাপের মুখে পড়েন। এ অবস্থায় তিনি শুক্রবার সম্মেলনে নেত্রীবৃন্দের নৈশভোজকালে ট্রাম্পের কাছে ইউক্রেন পরিস্থিতি তুলে ধরেন। পুতিন শনিবার সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, "আমি কৃষ্ণ সাগরের ঘটনা নিয়ে ট্রাম্পের প্রশ্নের জবাব দিয়েছি"।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে কৃষ্ণ সাগরে রাশিয়ার নৌবাহিনী ইউক্রেনের তিনটি জাহাজ ও ২৪ জন নাবিককে আটক করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুতিন জি ২০ সম্মেলনে ইউরোপ ও আমেরিকার তোপের মুখে পড়েন।

কিয়েভের তরফে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পেট্রো পরোশেংকো এ চাপ বজায় রেখে বলেন, "উত্তেজনা কমাতে আমরা আলোচনার জন্যে প্রস্তুত-ওই ঘটনা ঘটার সময়ে ক্রেমলিন নেতার সাথে ফোনে এ কথা বলার চেষ্টা আমি করেছি, কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সরাসরি টেলিফোনে কথা বলার আমার অনুরোধে পুতিন এখনও পর্যন্ত সাড়া দেননি"।

এছাড়াও কৃষ্ণ সাগরে ঘটে যাওয়া বিষয় নিয়ে জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল এবং ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ পুতিনের সমালোচনা করেন এবং উত্তেজনা কমাতে তার প্রতি আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত, এই দুই ইউরোপীয় দেশ ‘নরম্যান্ডি ফোর’ গ্রুপের সদস্য। অপর দুই সদস্য মস্কো ও কিয়েভ। মার্কেল বলেছেন, তিনি সংকট সমাধানে নরম্যান্ডি গ্রুপের বৈঠক চান।

জি ২০ সম্মেলন শেষে সংবাদ সম্মেলনে পুতিন আরো বলেন, সংকটের শান্তিপূর্ণ সমধানে ইউক্রেনের বর্তমান কর্তৃপক্ষের কোন আগ্রহ নেই।

উল্লেখ্য, রাশিয়ার ২০১৪ সালের ক্রিমিয়া দখলের পর গত ২৫ নভেম্বর কৃষ্ণ সাগর ও আজভ সাগরকে সংযুক্তকারী কার্চ প্রণালীতেই উভয় দেশের মধ্যে প্রথম সামরিক সংঘাতের ঘটনা ঘটে।