• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:১৪ বিকেল

সহস্রাব্দ প্রাচীন মন্দিরকে জাতীয় সম্পদ ঘোষণা করলো পাকিস্তান

  • প্রকাশিত ১১:২৬ রাত জানুয়ারী ৫, ২০১৯
পাকিস্তান মন্দির
পাকিস্তানের পাঞ্জ তিরাথ মন্দির। ছবি: সংগৃহীত

আফগানিস্তানের দুররানি শাসনামলে এই মন্দিরটির ব্যাপক ক্ষতিসাধন করা হয়েছিল

নতুন বছরে হিন্দুপ্রধান রাষ্ট্র ভারতের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের লক্ষ্যে হিন্দু নাগরিকদের জন্য যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান সরকার।

এক সরকারি বার্তায় পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখওয়ার প্রাদেশিক সরকার হাজার বছরের পুরনো একটি হিন্দু মন্দিরকে জাতীয় সম্পদ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) পাঞ্জ তিরাথ নামের মন্দিরটিকে জাতীয় সম্পদ হিসেবে স্বীকৃতি দেয় প্রাদেশিক সরকার।

মন্দিরের কমপ্লেক্সে পাঁচটি জলাশয় থাকার কারণে এর নাম দেওয়া হয়েছে পাঞ্জ তিরাথ। এখন থেকে এর দেখাশোনার দায়িত্বে থাকবে চাচা ইউনুস পার্ক এবং খাইবার পাখতুনখওয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি।

উল্লেখ্য, ১৭৪৭ সালে আফগানিস্তানের দুররানি শাসনামলে এই মন্দিরটির ব্যাপক ক্ষতিসাধন করা হয়েছিল। ১৮৮০ সালে তৎকালীন শিখ শাসনামলে স্থানীয় হিন্দুরা এটিকে সংস্কার করে আবারও সেখানে উপাসনা শুরু করেন।

প্রচলিত আছে, মহাভারতে উল্লেখিত পান্ডু রাজারা এই এলাকায় শাসন করতেন। প্রতিবছর কার্তিক মাসে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা সেখানকার পাঁচটি জলাশয়ে স্নান সেরে তালগাছের নিচে পূজা-অর্চনা করতেন।

এই মন্দিরের ক্ষতিসাধনের চেষ্টা করলে ২ মিলিয়ন রুপি জরিমানা এবং পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের শাস্তিও ঘোষণা করেছে প্রাদেশিক সরকার।