• বুধবার, জুলাই ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৩৬ রাত

ভূমধ্যসাগরে জাহাজডুবিতে ১৭০ অভিবাসীর মৃত্যুর আশঙ্কা

  • প্রকাশিত ০৫:২৫ সন্ধ্যা জানুয়ারী ২০, ২০১৯
উদ্ধারকাজ
লিবিয়া উপকূলে জাহাজডুবির কবলে পড়া অভিবাসীদের উদ্ধারকাজ। ছবি: রয়টার্স (ফাইল ছবি)।

শুধু ২০১৮ সালেই ইউরোপে পাড়ি জমাতে গিয়ে ভূমধ্যসাগরে ডুবে অন্তত ২২০০ অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে

ভূমধ্যসাগরে আলাদা ২টি জাহাজডুবির ঘটনায় ১৭০ অভিবাসীর মৃত্যুর আশঙ্কা করছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ( ইউএনএইচসিআর)। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়।

ইতালির নৌবাহিনীর সূত্রে জানা যায়, ১১৭ জন অভিবাসী নিয়ে লিবিয়ার উপকূলে একটি জাহাজ ভূমধ্যসাগরে ডুবে যায়। জাহাজডুবির পর প্রায় ২৪ ঘন্টা পানিতে অবস্থান করার পর একজনকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মরক্কো ও স্পেনের কর্তৃপক্ষ ‘ধ্বংসাবশেষ’ সন্ধানে পশ্চিম ভূমধ্যসাগরে তল্লাশি চালাচ্ছে

তালির নৌবাহিনীর বরাতে জানানো হয়, ১১৭ অভিবাসী বোঝাই একটি জাহাজ লিবিয়া উপকূলে ডুবে যায়। মরক্কো ও স্পেনের কর্তৃপক্ষ ‘ধ্বংসাবশেষ’ সন্ধানে পশ্চিম ভূমধ্যসাগরে তল্লাশি চালাচ্ছে। ২৪ ঘণ্টা পানিতে থাকার পর।

এদিকে লিবিয়া থেকে শনিবার (১৯ জানুয়ারি) ১২০ জন অভিবাসী নিয়ে রওনা দেওয়া একটি ডিঙি-নৌকা ডুবে যায়। এর মধ্যে মাত্র ৩ জন যাত্রী এখনও বেচে আছেন   বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম)। বেচে যাওয়া এই ৩ জন হাইপোথারমিয়ায় ভুগছে বলে সংস্থাটির পক্ষে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, শুধু ২০১৮ সালেই ইউরোপে পাড়ি জমাতে গিয়ে ভূমধ্যসাগরে ডুবে অন্তত ২২০০ অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে আইওএম মুখপাত্র ফিলিপ্পো গ্রান্ডি বলেন, "ইউরোপের দরজায় এত মৃত্যুতে আমরা চোখ বুজে থাকতে পারিনা"।

আইওএম আরো জানায়, চলতি বছরের প্রথম ১৬ দিনে ৪২১৬ জন অভিবাসী সাগরপথে ইউরোপে পাড়ি তাদের আশ্রয় দিতে ইতালি ও অন্যান্য ইউরোপের দেশগুলোর অনীহা রয়েছে।