• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ দুপুর

দুই বোনের পর পাকিস্তানে আবারও হিন্দু কিশোরীকে ধর্মান্তর

  • প্রকাশিত ০৬:৫২ সন্ধ্যা মার্চ ২৭, ২০১৯
যৌন হেনস্থা
প্রতীকী ছবি

অভিযোগ ওঠার পর ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়ে দিয়েছেন সিন্ধুর সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী হরি রাম কিশোরী লাল।

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে দুই বোনকে জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করার অভিযোগের এক সপ্তাহের মধ্যে আবারও দেশটিতে এক হিন্দু কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্মান্তরের ঘটনা ঘটেছে। এবারও সিন্ধু প্রদেশই এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো এধরনের অভিযোগ পাওয়া গেল। 

মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে সিন্ধ প্রদেশের বাদিন জেলার ধানি বুকশ গ্রামে। অভিযোগ উঠেছে, জোর করে বাড়িতে ঢুকে ষোলো বছর বয়সী ওই কিশোরীকে তুলে নিয়ে গিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে বাধ্য করা হয়। 

অভিযোগ ওঠার পর ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়ে দিয়েছেন সিন্ধুর সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী হরি রাম কিশোরী লাল। 

পাকিস্তানের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার ভোর রাত তিনটার দিকে চার যুবক ওই কিশোরীর বাড়ির দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে পড়ে জোর করে বাড়ি থেকে বের করে গাড়িতে তুলে নেয়। ওই কিশোরীর বাবা অভিযোগ করেছেন, তার মেয়েকে পরে জোর করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে বাধ্য করা হয়েছে।

তবে গ্রামবাসীদের দাবি, চার যুবকের একজনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল ওই কিশোরীর। সে স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে। 

তবে প্রণয়ের সম্পর্ক বা জোর করে ধর্মান্তরণ— পুলিশ কোনও তথ্যই নিশ্চিত করতে পারেনি।

ইতোপূর্বে, সিন্ধু প্রদেশেরই ঘোকতি এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের কিশোরী দুই বোনকে জোর করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করানো এবং বিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। যদিও পাকিস্তানের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, জোর করে নয়, স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তারা।