• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৪২ সকাল

ভারতে মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা

  • প্রকাশিত ০১:০৯ দুপুর জুন ২৪, ২০১৯
ঝাড়খণ্ড
ভারতের ঝাড়খণ্ডে চোর সন্দেহে এক মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

এসময় তাকে ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বাধ্য করা হয়


ভারতের ঝাড়খণ্ডে চোর সন্দেহে এক মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এসময় তাকে ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বাধ্য করা হয় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আনন্দবাজার।

রোববার (২৩ জুন) তবরেজ আনসারি সোনু নামের ওই যুবক মারা যান। গত ১৮ জুন সরাইকেলা-খরসোঁয়া জেলার ধক্তিদি গ্রামের বেশ কয়েকজন ব্যক্তি প্রায় ১৮ ঘণ্টা ধরে পেটায় তাকে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পেটাতে পেটাতে যুবককে তার নাম জিজ্ঞেস করা হয়। পুরো নাম বলতে বলা হয়। উত্তর আসে, ‘‘তবরেজ আনসারি।’ এরপরই নির্যাতনের মাত্রা বাড়ে। সেসময় তাকে ‘জয় শ্রীরাম’ বলার নির্দেশ দেয়া হয়। 


আরো পড়ুন- ঝিনাইদহে মন্দিরে ঢুকে প্রতিমা ভাঙচুর, আটক ১


সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, তবরেজকে পেটাতে পেটাতে লাঠি ভেঙে যাচ্ছে এক জনের। বুকফাটা আর্তনাদ করছেন তবরেজ। অনেক পরে পুলিশ এসে তবরেজকে উদ্ধার করে চুরির দায়ে কোর্টে তোলে। কোর্ট পাঠায় জেল হেফাজতে। পরে গতকাল তবরেজের শারীরিক অবস্থার অবনতি  হলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে তিনি মারা যান।” সমাজকর্মীদের অভিযোগ, হাজতে মৃত্যুর পরেই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাকে। 


আরো পড়ুন- ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুর্গা মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর


তবরেজের পরিবার জানিয়েছে, পুনেতে ঝালাই মিস্ত্রির কাজ করতেন ২৪ বছরের ওই যুবক। ঈদ উপলক্ষে বাড়ি এসেছিলেন। ১৮ তারিখে আরও দু’জনের সঙ্গে জামশেদপুর যাবেন বলে বেরিয়েছিলেন তিনি। ভিডিওতে শোনা গিয়েছে, তবরেজ বলছেন, দুই ব্যক্তি তাকে একটি মোটরসাইকেলের সামনে অপেক্ষা করতে বলে পালিয়ে যায়। 


আরো পড়ুন-৫৩টি সংখ্যালঘু পরিবারের জমি দখল করে প্রভাবশালীর মাছের ঘের!


আনন্দবাজার জানায়, ভিডিওগুলির ভিত্তিতে পাপ্পু মণ্ডল নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অজ্ঞাতপরিচয় আরও ১০০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে এফআইআরে। পাপ্পুর সঙ্গে হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের যোগ মেলেনি বলে পুলিশ দাবি করলেও কেউ কেউ মনে করিয়ে দিয়েছেন, ২০১৬ থেকে এই নিয়ে ১৩ জনকে পিটিয়ে মারা হল ঝাড়খণ্ডে, এমন তথ্য উঠে এসেছে প্রতিবেদনে।