• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫২ রাত

প্রতিবাদ জানাতে গায়ে আগুন জ্বালিয়ে ইরানি নারীর মৃত্যু

  • প্রকাশিত ১০:১৭ রাত সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯
ইরান
এই ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়৷ ছবি: সংগৃহীত

খেলা দেখতে পুরুষের বেশ ধরে প্রবেশের চেষ্টা করলে স্টেডিয়ামে ঢোকার সময় ধরা পড়েন সাহার খোদায়ারি। তাকে ৬মাসের সাজার রায় দেন আদালত। এরপর আদালতের বাইরে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন তিনি

পুরুষ সেজে স্টেডিয়ামে প্রবেশের চেষ্টা করায় ছয়মাসের সাজার রায় শুনে গায়ে আগুন ধরিয়ে মারা গেলেন ইরানের একজন নারী ফুটবল ভক্ত৷ খবর ডয়চে ভেলে।

শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) সাহার খোদায়ারি মারা যাওয়ার পর নিরাপত্তা বাহিনী তাকে দ্রুত সমাহিত করে৷ এসময় তারা মেয়েটির পরিবারকে বলেছে, ‘‘আপনার মেয়ে ইতোমধ্যে আমাদের যথেষ্ট ভোগান্তিতে ফেলেছে, আমরা আপনাদের কাছ থেকে আর কিছু শুনতে চাই না৷''

এই ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে৷ সংশ্লিষ্ট আদালত ও পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি তুলেছেন অনেকে৷

‘ব্লু গার্ল' নামে পরিচিত ২৯ বছর বয়সি সাহার খোদায়ারি গত মার্চ মাসে তার প্রিয় ইরানি ফুটবল ক্লাব এস্তেগলালের খেলা দেখতে পুরুষের বেশ ধরে স্টেডিয়ামে প্রবেশের চেষ্টা করেন৷ নীল রঙের পরচুলা পরেছিলেন তিনি, গায়ে ছিল ওভারকোট, তারপরও স্টেডিয়ামে ঢোকার সময় ধরা পড়ে যান৷

গ্রেপ্তারের পর জামিনে মুক্ত হন সাহার খোদায়ারি৷ কিন্তু গতসপ্তাহে তার ছয় মাসের সাজার রায় দেয় আদালত৷ এরপর আদালতের বাইরে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন তিনি৷

হাসপাতালে ব্যান্ডেজে মোড়ানো খোদায়ারির ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে৷ ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, দেশটির বিচার বিভাগ এই মৃত্যুর ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে৷

একইসাথে, মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার পর তার মৃত্যুর জন্য সংশ্লিষ্ট আদালত ও পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানিয়েছেন অনেকে৷

ফুটবল ক্লাব এস্তেগলাল এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘‘তার খুব ছোট্ট একটি ইচ্ছা পূরণের জন্য তাকে কবরে যেতে বাধ্য করা হলো৷''

ইরানের জাতীয় দল ও জার্মানির ক্লাব ব্রায়ার্ন মিউনিখের সাবেক খেলোয়াড় আলী কারিমি ইনস্ট্রাগ্রামে লিখেছেন, ‘‘স্টেডিয়ামে নারীদের নিষিদ্ধ করা ন্যাক্কারজনক৷''

ইরানকে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা থেকে নিষিদ্ধ করতে ফিফার প্রতি আহ্বানও জানিয়েছেন অনেকে৷

ইরানের নারীদের স্টেডিয়ামে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পক্ষে মত জানিয়ে ইরানের রাষ্ট্রপতি হাসান রুহানি বলেছেন, দেশটির ধর্মযাজকদের বিরোধিতার কারণে তিনি তা করতে পারছেন না৷