• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

৪০ বছর পর গ্যালারিতে নারীরা, প্রতিপক্ষের জালে ইরানের ১৪ গোল!

  • প্রকাশিত ১২:৩৫ দুপুর অক্টোবর ১১, ২০১৯
ইরান
গত ৪০ বছরের মধ্যে ইরানে প্রথমবারের মতো মাঠে বসে ফুটবল ম্যাচ দেখেন দেশটির নারীরা। ছবি: রয়টার্স

প্রায় ৪০ বছর পর মাঠে বসে খেলা দেখার অনুমতি পেলেন ইরানি নারীরা। গতমাসেই ফিফার তরফ থেকে ইরানকে নির্দেশ দেওয়া হয় যেন তারা নারীদের স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার ওপর থেকে সবধরনের বিধি-নিষেধ তুলে নেয়

গত ৪০ বছরের মধ্যে ইরানে প্রথমবারের মতো মাঠে বসে সরাসরি ফুটবল ম্যাচ দেখলো দেশটির নারীরা। ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার সতর্কবার্তার পর স্টেডিয়ামে নারী প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা তুলে দেয় ইরান। এরপর তেহরানের আজাদি স্টেডিয়ামে কম্বোডিয়ার বিপক্ষের দেশের খেলায় হাজার হাজার নারী উপস্থিত হয়।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে অংশ নিয়েছিল ইরান ও কম্বোডিয়া। সেখানে অনেক নারীই গালে ও কপালে ইরানের পতাকা এঁকে খেলার মাঠে হাজির হন। ম্যাচটিতে কম্বোডিয়াকে ১৪-০ গোলে হারায় ইরান। শুক্রবারও বিপুলসংখ্যক নারী দর্শক ইরানের সবুজ, সাদা ও লালের মিশেলে তৈরি পতাকা মাথায় ও গলায় ঝুলিয়ে তেহরানের আজাদি স্টেডিয়ামে ২০২২ ওয়ার্ল্ড কাপের বাছাই পর্বের খেলা উপভোগ করেন।

ইরানে মাঠে বসে নারীদের খেলা দেখতে না দেওয়ার বিষয়ে বহুদিন ধরেই বিতর্ক ছিল। আর এবিষয়ে সম্প্রতি ফিফার তরফ থেকেও হুমকি দেয়া হয়েছিল যে, ইরান যদি খেলার মাঠে তাদের বিতর্কিত বিধি-নিষেধ তুলে না নেয় তবে তারাও খেলায় অংশ নিতে পারবে না। 


আরও পড়ুন: প্রতিবাদ জানাতে গায়ে আগুন জ্বালিয়ে ইরানি নারীর মৃত্যু


গত মার্চ মাসে ব্লু গার্ল' নামে পরিচিত ২৯ বছর বয়সি সাহার খোদায়ারি তার প্রিয় ইরানি ফুটবল ক্লাব এস্তেগলালের খেলা দেখতে পুরুষের বেশ ধরে স্টেডিয়ামে প্রবেশের চেষ্টা করেন৷ নীল রঙের পরচুলা পরেছিলেন তিনি, গায়ে ছিল ওভারকোট, তারপরও স্টেডিয়ামে ঢোকার সময় ধরা পড়ে যান৷ গ্রেপ্তারের পর জামিনে মুক্ত হন সাহার খোদায়ারি কিন্তু তার ছয় মাসের সাজার রায় দেন আদালত৷ এঘটনার প্রতিবাদে আদালতের বাইরে এসে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে আত্মাহুতি দেন তিনি৷

এই ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়৷ সংশ্লিষ্ট আদালত ও পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি তোলেন অনেকে৷

এর আগে গত নভেম্বরের শুরুতে তেহরানে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে মাঠে খেলা দেখতে আসেন ৮০০জন ইরানি নারী। তবে তাদের বিশেষভাবে বাছাই করা হয়েছিল এবং তাদের কাছে কোনো টিকিট বিক্রি করা হয়নি।

প্রায় ৪০ বছর পর মাঠে বসে খেলা দেখার অনুমতি পেলেন ইরানি নারীরা। গতমাসেই ফিফার তরফ থেকে ইরানকে নির্দেশ দেওয়া হয় যেন তারা নারীদের স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার ওপর থেকে সবধরনের বিধি-নিষেধ তুলে নেয়। এরপরেই ইরান নারীদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়। সাম্প্রতিক সময়ে কট্টরপন্থী দেশ সৌদিও নারীদের স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার অনুমতি দিয়েছে।