• বুধবার, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি, নিহত ৪০

  • প্রকাশিত ১১:৫৬ সকাল অক্টোবর ২৬, ২০১৯
ইরাক
ইরাকে একমাস ধরে চলা সরকারবিরোধী আন্দোলন। ছবি: রয়টার্স

শুক্রবার বাগদাদের তাহরির স্কয়ারে বিক্ষোভে যোগ দেওয়া ১৬ বছরের আলি মোহাম্মদ বলেন, ‘আমাদের দাবি কেবল চারটি: চাকরির নিশ্চয়তা, পানি, বিদ্যুৎ সরবরাহ ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ’

ইরাকে প্রায় মাসখানেক ধরে চলা সরকারবিরোধী আন্দোলনে শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে অন্তত ৪০জন নিহতের ঘটনা ঘটেছে। বাগদাদের সুরক্ষিত গ্রিন জোন এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালায় পুলিশ।দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর বরাত দিয়ে এখবর নিশ্চিত করেছে রংটার্স।

পুলিশ সূত্র জানায়, শুক্রবার ইরাকের এক সরকারি গোয়েন্দা কর্মকর্তাও নিহত হয়েছেন।  

ইরাকি হাইকমিশন অন হিউম্যান রাইটস (আইএইচসিএইচআর) জানায়,  শুক্রবার হাজার হাজার ইরাকি বাগদাদের তাহরির স্কয়ারে জড়ো হন। এসময় তারা শহরের গ্রিন জোনের অভিমুখে মিছিল করার চেষ্টা করেন। ওই এলাকায় সরকারি ভবন ও বিদেশি দূতাবাসগুলো অবস্থিত।এদিন সকাল থেকে মধ্য বাগদাদের তাহরির স্কোয়ারে জমায়েত হতে শুরু করেন শতশত মানুষ। কংক্রিটের দেয়াল ঠেলে তাদের কেউ কেউ গ্রিন জোনে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন। বিক্ষোভ শুরু হওয়া মাত্রই ইরাকের পুলিশ বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়তে শুরু করে।  

বাগদাদের তাহরির স্কয়ারে বিক্ষোভে যোগ দেওয়া ১৬ বছরের আলি মোহাম্মদ বলেন, “আমাদের দাবি কেবল চারটি: চাকরির নিশ্চয়তা, পানি, বিদ্যুৎ সরবরাহ ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ।” 

গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে কর্মসংস্থানের সংকট, নিম্নমানের সরকারি পরিষেবা ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বাগদাদের রাজপথে নামেন কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী। নিরাপত্তাবাহিনী টিয়ার গ্যাস ও গুলি চালিয়ে তাদের ওপর চড়াও হলে এই বিক্ষোভ আরও জোরালো হয়ে ওঠে, ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন শহরে। বিশেষ করে শিয়া অধ্যুষিত দক্ষিণাঞ্চলীয় বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ ব্যাপক আকার ধারণ করে।