• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০২ দুপুর

ইথিওপিয়ার শান্তিতে নোবেলজয়ী প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নিহত ৬৭

  • প্রকাশিত ০৬:১৫ সন্ধ্যা অক্টোবর ২৬, ২০১৯
ইথিওপিয়া
ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে ৬৭ জন নিহত হয়েছেন। এএফপি

গত বুধবার থেকে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী নোবেলজয়ী আবি আহমেদের বিরুদ্ধে চলমান বিক্ষোভ  সহিংস রুপ নেয় দেশটির রাজধানী আদ্দিস আবাবা ও ওরোমিয়া অঞ্চলে

ইথিওপিয়ার শান্তিতে নোবেলজয়ী প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে চলমান বিক্ষোভে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে ৬৭জন নিহত হয়েছেন। দেশটির ওরোমিয়া এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ৫জন পুলিশ সদস্য রয়েছেন বলে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের একটি খবরে বলা হয়।

শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) দেশটির আঞ্চলিক পুলিশ প্রধান কেফিয়ালিউ তেফেরা সাংবাদিকদের বলেন, "ওরোমিয়াতে নিহতের সংখ্যা ৬৭জন। নিহতদের মধ্যে পাঁচজন পুলিশ কর্মকর্তা রয়েছেন।"

তবে, বর্তমানে ওরোমিয়া অঞ্চলের সহিংসতা থেমে গেছে বলে দাবি করেছেন তিনি। যদিও অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের গবেষক ফিসেহা টেকল সহিংসতার খবর এখনও পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে সহিংসতাপ্রবণ ৭টি এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনা মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী লেমা মেগেরসা।  

এর আগে আবি আহমেদ বিরোধী বিক্ষোভের নেতৃত্বদানকারী জাওয়ার মোহাম্মদ দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী তার বিরুদ্ধে হামলার ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার রাজধানী আদ্দিস আবাবা ও ওরোমিয়া শহরে চলমান বিক্ষোভ সহিংস রুপ নেয়।

উল্লেখ্য, গতবছর এক বিক্ষোভের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেন আবি আহমেদ। সেইসময় আবিকে সমর্থন জানিয়েছিলেন জাওয়ার মোহাম্মদ। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর নীতির সমালোচকে পরিণত হয়েছেন তিনি।

জাওয়ারের অভিযোগ, শান্তিতে নোবেলজয়ী প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ স্বৈরাচারের মতো আচরণ করছেন। এই কারণে ইতোমধ্যে আগামী নির্বাচনে আবি আহমেদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ইথিওপিয়া ও ইরিত্রিয়ার সংঘাত নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করায় ২০১৯ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জেতেন আবি আহমেদ। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম ১০০ দিন তিনি জরুরি অবস্থা তুলে নিয়ে হাজার হাজার রাজনৈতিক বন্দিকে মুক্তি দেওয়ার কাজ করেন। এছাড়াও তিনি মিডিয়া সেন্সরশিপ এবং বিরোধী দলের ওপর জারিকৃত নিষেধাজ্ঞা। ইথিওপিয়ায় সহিংসতা সম্পূর্ণ বন্ধ করতে এখনও অনেক পথ বাকি থাকলেও আবি আহমেদের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপে আশার আলো দেখেছিল দেশটির জনগণ। তবে, শান্তিতে নোবেল জয়ের কিছুদিনের মধ্যেই আবি আহমেদ বিরোধী বিক্ষোভে ৬৭ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় আলোচনার শুরু হয়েছে বিশ্বজুড়ে।