• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৭ দুপুর

পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে কাশ্মীর যাচ্ছে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট প্রতিনিধিদল

  • প্রকাশিত ০৮:৩৮ রাত অক্টোবর ২৮, ২০১৯
কাশ্মীর
ছবি: এএফপি

গত ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর থেকেই একাধিক বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে উপত্যকাটিতে। আপাতত ল্যান্ডলাইন ও পোস্টপেড টেলি যোগাযোগ সচল হলেও এখনও সেখানকার কিছু এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর তিন মাস হতে চললো। তাই কাশ্মীরের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) উপত্যকায় যাচ্ছে ইউরোপীয় সংসদীয় দলের প্রতিনিধিরা। অবশ্য ইতোমধ্যেই ভারতে এসে পৌঁছেছে ২৮জনের ওই দলটি। এক প্রতিবেদনে খবরটি নিশ্চিত করেছে আনন্দবাজার।

প্রতিনিধিদলটির কাশ্মীর পরিদর্শনে যাওয়ার কথা টুইটে জানিয়েছেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে ওই প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সোমবার কথা বলেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

গত ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর থেকেই একাধিক বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে উপত্যকাটিতে। আপাতত ল্যান্ডলাইন ও পোস্টপেড টেলি যোগাযোগ সচল হলেও এখনও সেখানকার কিছু এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে।

এদিকে, দেশটির সরকার মিথ্যা বলছে বলে আগেই অভিযোগ করেছিলেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির মেয়ে ইলতিজা মুফতি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে ‘সত্যি কথা’ না লিখতে চাপ দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছিলেন তিনি। 

সোমবার মা মেহবুবা মুফতির টুইটারে ইলতিজা লেখেন, “আশা করা যায়, তারা (ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদল) সাধারণ মানুষ, স্থানীয় সংবাদমাধ্যম, চিকিৎসক ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পাবে। গোটা দুনিয়া ও কাশ্মীরের মধ্যে থাকা লোহার পর্দা উঠে যাওয়া প্রয়োজন। জম্মু-কাশ্মীরকে অস্থির পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দেওয়ার জন্য কৈফিয়ত দিতে হবে সরকারকে।”