• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা, বিবস্ত্র করে ঘোরানো হল বখাটেকে

  • প্রকাশিত ১১:৫৯ সকাল ডিসেম্বর ২, ২০১৯
শিশু নির্যাতন
প্রতীকী ছবি

ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের নাগপুরে কন্যাশিশুকে ধর্ষণের সময় হাতেনাতে ধরা পড়ায় এ শাস্তি দেন স্থানীয়রা

ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের নাগপুরে চারবছর বয়সী এক কন্যাশিশুকে ধর্ষণের সময় হাতেনাতে ধরা পড়েছে জওহর বৈদ্য নামে এক যুবক। 

রবিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় শিশুটিকে বাড়িতে একা পেয়ে যৌন হয়রানির চেষ্টা করে ওই যুবক। ঠিক সেই মুহূর্তে শিশুটির মা বাড়ি ফিরে এমন দৃশ্য দেখেই চিৎকার করে ওঠেন তিনি। তার চিৎকারে ছুটে আসেন প্রতিবেশীরাও। এরপর তাকে মারধর করে বিবস্ত্র অবস্থায় পুরো এলাকায় ঘোরান এলাকাবাসী, এমনটিই এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এইসময়। 

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কোনও শিশু বা নারীকে দেখে এমন কোনও চিন্তা যাতে না আসে সেজন্যই এ শাস্তি। এরপর তাকে পুলিশের কাছে তুলে দেওয়া হয়।

পুলিশ জানায়, অভিযুক্তর বৈদ্য নাগপুরের একটি কো-অপারেটিভ সোসাইটি ব্যাংকের অর্থ সংগ্রহক হিসেবে চাকরিরত। প্রতিদিনই ওই শিশুর বাড়িতে টাকা তুলতে আসতো ওই ব্যক্তি। পরে রবিবার শিশুটিকে একা পেয়ে যৌন হয়রানি করে সে। 

অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় ও পকসো আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে। 

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হায়দ্রাবাদে তরুণী পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় সারা ভারত জুড়ে যখন বিক্ষোভের আগুন জ্বলছে, সেসময় শিশুকন্যাকে ধর্ষণচেষ্টায় এধরনের শাস্তি অস্বাভাবিক নয় বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।