• সোমবার, এপ্রিল ০৬, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৫৪ রাত

মশা আমদানি করতে পারলে বলতাম আপনাদের কামড়াতে, বিরোধীদের মমতা

  • প্রকাশিত ১২:০০ দুপুর ডিসেম্বর ৪, ২০১৯
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংগৃহীত

মঙ্গলবার বিধানসভায় তিনি বলেন,  ‘৪৪ হাজার কেসে যদি ২৭ জন মারা যায়, বাকি রোগীদের তো সরকার বাঁচিয়েছে’ 

মশা কি তৃণমূল কংগ্রেস আমদানি করে নিয়ে এসেছে? ডেঙ্গু নিয়ে সমালোচনার বিরুদ্ধে একথা বলেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) বিধানসভায় ডেঙ্গু নিয়ে বিরোধীদলের সমালোচনার একপর্যায়ে একথা বলেন তিনি। 

তিনি বলেছেন,  ‘‘প্রায় ৪৫ হাজার আক্রান্তের মধ্যে এপর্যন্ত রাজ্যে ডেঙ্গিতে মৃতের সংখ্যা ২৭। চুয়াল্লিশ হাজার কেসে ২৭ জন যদি মারা যায়, বাকি রোগীদের তো সরকার বাঁচিয়েছে। আমরা সিরিয়াস বলেই এত লোককে বাঁচাতে পেরেছি। আমদানি করতে পারলে প্রথমেই বলতাম, আপনাদের কামড়াতে। বলি কামড়াতে? বুঝবেন, জনগণকে কামড়ালে কী হয়!’’

মমতা ডেঙ্গু নিয়ে বিরোধীদলের বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, ‘‘কখনও কখনও কোনও একটা রোগ কোনও কোনও রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ে।” এসময় সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত রাজস্থান, গুজরাট, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, আসামে মৃতের সংখ্যা যে অনেক বেশি, সে তথ্যও দেন তিনি। 

বাম আমলে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কী ভাবে ক্রমবর্ধমান ছিল, সেই তথ্যও দেন। বিরোধীদের উদ্দেশে মমতার কটাক্ষ, ‘‘লেজ গুটিয়ে যখন পালিয়ে গিয়েছেন, তখন বুঝতে হবে, যা বলছেন, তা সত্য নয়, তথ্যও নয়। শুধু অসত্য, কুৎসা, চক্রান্ত, অপপ্রচার!’’

মঙ্গলবার বিধানসভায় ডেঙ্গুতে মৃত্যুর বিষয়ে রাজ্য সরকারের সমালোচনা করে বিরোধীদল। এরই প্রতিবাদে বিরোধীদলের বেশ কয়েকজন নেতাও বিধানসভা থেকে বের হয়ে যান। এরপর ডেঙ্গু নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এসময় ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য দফতর ব্যর্থতার দায় অস্বীকার করতে পারে না বলে মন্তব্য করেন শিলিগুড়ির মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।

প্রসঙ্গত, রাজ্যটিতে প্রায় ৪৫ হাজার ব্যক্তি ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে। এরমধ্যে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৭ জন।