• রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:৫৯ সন্ধ্যা

গরু পরিচর্যায় অপরাধের মানসিকতা কমে!

  • প্রকাশিত ০৩:৪৪ বিকেল ডিসেম্বর ৮, ২০১৯
গরু
ভারতীয় গরু। রয়টার্স

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রধান মোহন ভাগবতের মতে, ‘গরু মানুষেরও দেখভাল করে। আমাদের নানা রোগের হাত থেকে বাঁচায়। আমাদের হৃদযন্ত্রকে ফুলের মতো কোমল ও পবিত্র রাখে’

গো-সেবা করলে নাকি জেলবন্দিদের “অপরাধী মানসিকতা” দূর হয়ে যায়! কোনও বিজ্ঞানীর নয়, এই রোমাঞ্চকর “আবিস্কার” ভারতের রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রধান মোহন ভাগবতের। এক প্রতিবেদনে এখবর জানিয়েছে আনন্দবাজার।  

রবিবার (৮ ডিসেম্বর) গো-বিজ্ঞান সংশোধন সংস্থার আয়োজনে এক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে দেওয়া এক ভাষণে ভাগবত বলেন,  জেলে গো-শালা বানানোর পর দেখা গেলো, গরুদের সেবা ও পরিচর্যা করতে করতে বন্দিদের অপরাধী মানসিকতা কমে যাচ্ছে। তাদেরমধ্যে সকলকে ভালবাসার অনুভূতি জন্মাচ্ছে বা তা বাড়ছে। এটা নিছকই কথার কথা নয়। জেল কর্তৃপক্ষ তাদের এই অভিজ্ঞতার কথা আমাকে জানিয়েছেন। তার ভিত্তিতেই এসব বলছি।”

তিনি আরও জানিয়েছেন, গরু এই ব্রহ্মাণ্ডের জননী। তারা মাটির দেখভাল করে। তারা পশু-পাখিদের দেখভাল করে।

ভাগবতের মতে, “এমনকী, গরু মানুষেরও দেখভাল করে। আমাদের নানা রোগের হাত থেকে বাঁচায়। আমাদের হৃদযন্ত্রকে ফুলের মতো কোমল ও পবিত্র রাখে।’’

তার পরামর্শ, গো-রক্ষায় সমাজের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে এবং গো-রক্ষার প্রয়োজন কতটা তা সকলকে বিজ্ঞানসম্মত উপায়েই বোঝাতে হবে।