• শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৩ সকাল

চীন সীমান্তে স্থায়ী সমাধান খুঁজছে ভারত!

  • প্রকাশিত ০৫:৩৬ সন্ধ্যা জানুয়ারী ১, ২০২০
ভারত-চীন
অরুণাচলে ভারত-চীন সীমান্ত এলাকা সংগৃহীত

ডোকলামে চীনের রাস্তা তৈরি আটকাতে কম বেগ পেতে হয়নি ভারতকে। ২০১৭’তে সেই নিয়ে বিরোধ চরমে উঠলে একটানা ১০ সপ্তাহ মুখোমুখি অবস্থান করে দুইদেশের সেনাবাহিনী

শুধু পাকিস্তান নিয়ে পড়ে থাকলে চলবে না। উত্তর-পূর্বের চীন সীমান্তকেও গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। সেখানেও নজরদারি বাড়াতে হবে বলে জানিয়েছেন ভারতের সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নরবনে। এক প্রতিবেদনে এখবর নিশ্চিত করেছে আনন্দবাজার।  

মঙ্গলবার (৩১ ডিসেম্বর) সেনাপ্রধান হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন মনোজ মুকুন্দ নরবনে। বুধবার দিল্লিতে “গার্ড অব অনার” সম্মানে ভূষিত করা হলে সেখানেই এমন মন্তব্য করেন তিনি।

দেশটির নবনিযুক্ত সেনাপ্রধান বলেন, “এতদিন পশ্চিম সীমান্তকেই বেশি গুরুত্ব দিয়ে এসেছি আমরা। উত্তর সীমান্তের দিকেও নজর দেওয়া প্রয়োজন। যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সেনাবাহিনী সর্বদা প্রস্তুত।  উত্তর ও উত্তর-পূর্ব সীমান্তেও সামরিক ক্ষমতা বাড়ানো হবে।”

গত কয়েকবছরে একাধিকবার ভারতের লাদাখ ও অরুণাচলে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে চীনা সেনাবাহিনী। ডোকলামে চীনের রাস্তা তৈরি আটকাতেও কম বেগ পেতে হয়নি ভারতকে। ২০১৭’তে সেই নিয়ে বিরোধ চরমে উঠলে একটানা ১০ সপ্তাহ মুখোমুখি অবস্থান করে দুইদেশের সেনাবাহিনী।

দীর্ঘদিন সেনাবাহিনীর ইস্টার্ন কম্যান্ডের নেতৃত্বে থাকায় দুই দেশের টানাপড়েন সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল নরবনে অতীতে চীনকে “গুন্ডা” বলেও কটাক্ষ করেছিলেন। 

তবে সেনাপ্রধান হিসেবে দুইদেশের মধ্যে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানেই জোর দিয়ে তিনি বলেন, “চীনের সঙ্গে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) রয়েছে আমাদের। তাই সীমান্ত বিরোধের একটা নিষ্পত্তি হওয়া দরকার। তবে সীমান্তে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে অনেকটাই উন্নতি করেছি আমরা। সীমান্তে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখলেই বিরোধের স্থায়ী সুরাহা হবে বলে নিশ্চিত আমি।”