• শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০২ রাত

ট্রাম্পের নির্দেশেই জেনারেল সোলায়মানিকে হত্যা

  • প্রকাশিত ০১:০৪ দুপুর জানুয়ারী ৩, ২০২০
ইরান
দুনিয়ার এক নম্বর জেনারেল হিসেবে পরিচিত কাসেম সোলাইমানি অত্যন্ত সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। রয়টার্স

সোলাইমানি নিহত হওয়ার জেরে এরইমধ্যে বিশ্ব বাজারে তেলের দাম বেড়ে গেছে

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই ইরানের বিপ্লবী গার্ডস বাহিনীর (আইআরজিসি) কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলায়মানিকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন। 

শুক্রবার ভোররাতে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে হেলিকপ্টার থেকে চালানো ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি এবং ইরাকের হাশদ আশ-শাবি বাহিনীর উপ-প্রধান আবু মাহদি আল-মুহানদিস নিহত হন।

এএফপির খবরে বলা হয়, বিদেশের মাটিতে মার্কিন নাগরিকদের সুরক্ষার স্বার্থে আত্মরক্ষামূক এমন চূড়ান্ত পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে দাবি করে দেওয়া এক বিবৃতিতে পেন্টাগন জানায়, “জেনারেল কাসেম সুলাইমানি ইরাক ও পুরো অঞ্চলে নিয়োজিত আমেরিকান কূটনীতিক ও সেনা সদস্যদের ওপর হামলার পরিকল্পনা করছিল। জেনারেল সুলাইমানি ও তার কুদস বাহিনী আমেরিকান ও জোট বাহিনীর শত শত সদস্যকে হত্যা ও আরও হাজার হাজার জনকে আহত করার জন্য দায়ী।”


আরও পড়ুন - সোলায়মানিকে হত্যা: যুদ্ধে জড়াচ্ছে ইরান?


মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সোলায়মানির মৃত্যুর পর বিস্তারিত কিছু উল্লেখ না করে মার্কিন পতাকার একটি ছবি টুইট করেন।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ  সোলায়মানি নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে “মারাত্মক বিপজ্জনক” ও “বোকামি” বলে বর্ণনা করেছেন।

তিনি বলেন, আমেরিকার এই ঔদ্ধত্বপূর্ণ ও হঠকারী হামলার যেকোনো পরিণতির দায় ওয়াশিংটনকে বহন করতে হবে। ইরানের সর্বোচ্চ জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ এখন যে সিদ্ধান্ত নেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তা বাস্তবায়নের দায়িত্ব পালন করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এদিকে সোলাইমানি নিহত হওয়ার জেরে এরইমধ্যে বিশ্ব বাজারে তেলের দাম বেড়ে গেছে।


আরও পড়ুন - ইরানের সর্বোচ্চ নেতা: ‘কঠোর প্রতিশোধ’ অপেক্ষা করছে