• রবিবার, এপ্রিল ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৯ রাত

‘ভারত থেকে রোহিঙ্গাদের অবশ্যই তাড়ানো হবে’

  • প্রকাশিত ০৪:৪২ বিকেল জানুয়ারী ৪, ২০২০
রোহিঙ্গা
মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা কাফেলা। মাহমুদ হোসাইন অপু/ঢাকা ট্রিবিউন

বাংলা, বিহারের মতো একাধিক রাজ্য পেরিয়ে রোহিঙ্গারা কীভাবে জম্মু পৌঁছালো, তাদের যাতায়াতের খরচই বা কে দিলো তাও খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করেন ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহ

মিয়ানমার থেকে আগত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভারতে কোনও জায়গা নেই বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন দেশটির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিংহ।

দেশটির কেন্দ্রীয় ওই মন্ত্রীর দাবি, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে শুধুমাত্র বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টান, শিখ ও পার্সিদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথাই বলা রয়েছে। মায়ানমার বা রোহিঙ্গাদের কোনও উল্লেখ নেই তাতে। তাই তাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রশ্ন ওঠে না। এক প্রতিবেদনে এখবর জানিয়েছে আনন্দবাজার।

শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) কাশ্মীরের শ্রীনগরে সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়ে আয়োজিত তিনদিনব্যাপী এক অনুষ্ঠানে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে আলোচনা চলাকালীন এমন মন্তব্য করেন জিতেন্দ্র সিংহ। 

তিনি বলেন, “সংসদে বিল পাস হয়ে যাওয়ার দিন থেকেই জম্মু-কাশ্মীরে সিএএ চালু হয়ে গিয়েছে। এনিয়ে কোনও যদি কিংবা কিন্তুর ব্যাপার নেই। আর এবার রোহিঙ্গাদের নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে সরকার।”

জিতেন্দ্র সিংহের দাবি, ‘‘রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনা চলছে। তাদের একটি তালিকা তৈরি করা হবে। প্রয়োজনে তৈরি করা হবে বায়োমেট্রিক পরিচয়পত্রও। কারণ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে রোহিঙ্গাদর কোনও সুবিধা দেওয়ার কথা বলা নেই। প্রতিবেশী তিনদেশে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার যে ছ’টি সম্প্রদায়কে নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে, রোহিঙ্গারা তার মধ্যে পড়ে না।’’ 

বাংলা, বিহারের মতো একাধিক রাজ্য পেরিয়ে রোহিঙ্গারা কীভাবে জম্মু পৌঁছালো, তাদের যাতায়াতের খরচই বা কে দিলো এবং এর পেছনে কোনও রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে কিনা, তাও খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করেন জিতেন্দ্র সিংহ।