• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:২৭ রাত

ইরান: যুদ্ধ চাই না, কিন্তু হামলার জবাব দেওয়া হবে

  • প্রকাশিত ০৮:৩৬ রাত জানুয়ারী ৯, ২০২০
ইরান
বুধবার (৮ জানুয়ারি) ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ১২টির বেশি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান এএফপি

এর আগে বুধবার (৮ জানুয়ারি) ইরাকে অবস্থিত দু'টি মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ১২টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান

যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিজেদের শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা নিহত হওয়ার পর "পরিমিত ও আনুপাতিক সামরিক প্রতিক্রিয়া" দেখানো হয়েছে এবং এ নিয়ে কোনো "যুদ্ধ চায় না" বলে জাতিসংঘকে জানিয়েছে ইরান।

বুধবার (৮ জানুয়ারি) রাতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ও মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে ইরানের রাষ্ট্রদূত মজিদ তখত রাভঞ্চি নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।

তবে ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র আর কোনো সামরিক পদক্ষেপ বা আগ্রাসন চালালে তার কঠোর জবাব দেওয়া হবে বলে সতর্কবার্তাও দিয়েছেন তিনি।

চিঠিতে রাভঞ্চি উল্লেখ করেন, "ইরাকে অবস্থিত একটি মার্কিন ঘাঁটি লক্ষ্য করে হামলা চালায় ইরান। ওই ঘাঁটি থেকেই শহীদ (কাসেম) সোলাইমানির ওপর কাপুরুষোচিত সশস্ত্র হামলা চালানো হয়েছিল।"

"অভিযানটি সুনির্দিষ্ট ছিল এবং সামরিক লক্ষ্যবস্তুতেই হামলা চালানো হয়েছে যাতে বেসামরিক মানুষের সম্পদ ক্ষতিগ্রস্থ না হয়," চিঠিতে যোগ করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত  ইরানের রাষ্ট্রদূত। 

জাতিসংঘ সনদের ৫১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ইরান তাদের আত্মরক্ষার অধিকার প্রয়োগ করেছে বলেও জানান জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত।

এর আগে বুধবার (৮ জানুয়ারি) ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ১২টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। ওই হামলায় বেশ কয়েকজন মার্কিন সেনা নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে ইরান।

তবে, যুক্তরাষ্ট্রের চিফ অব স্টাফ জেনারেল মার্ক মাইলি এবং দেশটির প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এসপার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, পশ্চিম ইরাকের আল-আসাদ ঘাঁটিতে ইরানের ১২টিরও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় মাঝারি ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো নাগরিক নিহত বা আহত হননি।