• শুক্রবার, এপ্রিল ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৬ দুপুর

'ইয়ে লো আজাদি' বলে গুলি চালানো বন্দুকধারীকে ‘দেশপ্রেমিক’ আখ্যা!

  • প্রকাশিত ০৯:৫২ সকাল ফেব্রুয়ারি ১, ২০২০
সিএএ বিরোধী আন্দোলন
বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের দিকে তাক করে গুলি ছোড়েন এক ব্যক্তি। রয়টার্স

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) ভারতের দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বিরোধী বিক্ষোভে অভিযুক্তের চালানো গুলিতে এক শিক্ষার্থী আহত হন

ভারতে দিল্লির জামিয়া চত্বরে গুলি চালানোর ঘটনায় অভিযুক্ত “কিশোরের” পাশে দাঁড়িয়েছে দেশটির হিন্দু মহাসভার একাংশ। তাকে দেশটির জাতির পিতা মোহনদাস কর্মচান্দ গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসের মতো দেশপ্রেমিক বলে আখ্যা দিয়ে সংবর্ধনা দেওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়েছেন সংগঠনের উত্তরপ্রদেশের এক শীর্ষ নেতা। এক প্রতিবেদনে এখবর জানায় আনন্দবাজার।  

যদিও হিন্দু মহাসভার জাতীয় সভাপতি চক্রপাণি মহারাজ জানিয়েছেন, ওই কিশোরকে সংবর্ধনা দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। বরং যারা তা দেওয়ার কথা বলেছেন, তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। 

শুক্রবার (৩১ জানুয়ারি) হত্যাকারী “গডসের মতো প্রকৃত দেশপ্রেমিক” আখ্যা দিয়ে হিন্দু মহাসভার উত্তরপ্রদেশের নেতা গজেন্দ্র পাল সিংহ। ওই কিশোরকে সংবর্ধনার কথাও বলেছেন তিনি। সংগঠনের মুখপাত্র অশোক পাণ্ডে বলেন, ‘‘ওই কিশোরের জন্য হিন্দু মহাসভা গর্বিত।’’

শুক্রবার হামলাকারীকে জুভেনাইল জাস্টিজ বোর্ডের সামনে পেশ করে দিল্লি পুলিশ। বোর্ড তাকে ১৪দিন প্রোটেকটিভ কাস্টডি-তে রাখার নির্দেশ দেয়। ওই কিশোরকে এর আগে নাবালক বলে দাবি করেছিলো দিল্লি পুলিশ। সে সত্যিই নাবালক কিনা সেই বিতর্ক থামাতে জুভেনাইল বোর্ডের কাছে ওই কিশোরের “অসিফিকেশন” পরীক্ষার অনুমতি চেয়েছে দিল্লি পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ। 

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) সকালে ভারতের দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বিরোধী বিক্ষোভে অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তির চালানো গুলিতে এক শিক্ষার্থী আহত হন। দেশটির রাজধানীতে একমাসেরও বেশি সময় ধরে চলমান এই বিক্ষোভে এধরনের ঘটনা এই প্রথম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অস্ত্রধারী ওই ব্যক্তি "ইয়ে লো আজাদি...হিন্দুস্তান জিন্দাবাদ...দিল্লি পুলিশ জিন্দাবাদ" বলে স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভাকারীদের দিকে গুলি ছোড়েন।