• রবিবার, নভেম্বর ২৮, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:১২ রাত

চীনে উচ্চশিক্ষা: বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত

  • প্রকাশিত ০৩:১৪ বিকেল অক্টোবর ১৪, ২০২১
চীন
চীনের পতাকা রয়টার্স

চীনের সরকারি বৃত্তি কর্মসূচি বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের আগ্রহের সবচেয়ে বড় কারণ

অন্যান্য দেশের তুলনায় খরচ অনেক কম হওয়ায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ইচ্ছুক বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের কাছে চীন জনপ্রিয় গন্তব্য হয়ে উঠছে। 

উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ এবং অস্ট্রেলিয়ার তুলনায় টিউশন ফি এবং জীবনযাত্রার খরচ তুলনামূলকভাবে কম হওয়ার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য উল্লেখযোগ্য হারে পূর্ণাঙ্গ বৃত্তি দিচ্ছে চীন। উপরন্তু, স্নাতক অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে পর্যাপ্ত কাজের সুযোগ। 

বাংলাদেশের শিক্ষার্থী এবং চীনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা সম্প্রতি ঢাকা ট্রিবিউনের সঙ্গে চীনে পড়াশোনার সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে কথা বলেছেন। 

বাংলাদেশ চায়না ইয়ুথ স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিওয়াইএসএ) মতে, বর্তমানে প্রায় ১২ হাজার বাংলাদেশি চীনে অধ্যয়নরত। প্রথম তিন বাংলাদেশি ছাত্র ১৯৭৬ সালে বৃত্তি নিয়ে চীনে গিয়েছিলেন। 

প্রায় দুই হাজার ৮০০ স্নাতক অধ্যয়নরত, স্নাতক পাস এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের প্রতি বছর চীনের সরকারি বৃত্তি দেওয়া হয়। এছাড়া, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী নিজস্ব খরচে চীনে উচ্চশিক্ষা নিচ্ছেন। 

চীনের উহানের হুয়াজং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (এইচইউএসটি) কলেজ অব পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের পিএইচডি শিক্ষার্থী মারুফ হাসান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, চীনের সরকারি বৃত্তি কর্মসূচির কারণে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা দেশটিতে অধ্যয়নের জন্য আগ্রহী হয়ে উঠছেন। 

তিনি বলেন, চীন সরকারের বৃত্তিগুলোর মধ্যে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি, আবাসন এবং প্রাত্যহিক খরচ অন্তর্ভুক্ত। 

চীন সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চায়না স্কলারশিপ কাউন্সিল (সিএসসি) শিক্ষার্থীদের তালিকাভুক্ত করা এবং বৃত্তি কার্যক্রম পরিচালনার কাজটি করে থাকে। 

চীনের বৃত্তি কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- বেল্ট অ্যান্ড রোড স্কলারশিপ, সিল্ক রোড স্কলারশিপ, প্রাদেশিক স্কলারশিপ এবং প্রেসিডেন্ট স্কলারশিপ। 

তালিকায় চীনের প্রায় ২৮৯টি মনোনীত বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। যেগুলো বিজ্ঞান, প্রকৌশল, কৃষি, মেডিসিন, অর্থনীতি, আইন, ব্যবস্থাপনা, শিক্ষা, ইতিহাস, সাহিত্য, দর্শন এবং চারুকলার সব স্তরে বৃত্তিপ্রাপ্তদের বিভিন্ন ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত করে থাকে। 

মারুফ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিষয়গুলোর চাহিদা সবচেয়ে বেশি। তারপরেই মেডিসিন। 

আবেদনকারীদের জন্য তার পরামর্শ, সিএসসি স্কলারশিপের জন্য আবেদন করার আগে আবেদনকারীদের আইইএলটিএস পরীক্ষা দেওয়া উচিত। কারণ এই নম্বর আবেদনকারীদের অন্যদের থেকে এগিয়ে নেবে। 

চীনের সাংহাই ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং সায়েন্সের ইলেকট্রনিক ইনফরমেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক ডক্টর এএএম মুজাহিদ বলেন, চীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা শিক্ষার্থীদের চাকরির সুযোগ প্রচুর। 

তিনি চংকিং ইউনিভার্সিটি অব পোস্টস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন থেকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রকৌশল বিষয়ে এমএসই সম্পন্ন করেন। এরপর ২০২১ সালে সাংহাই বিশ্ববিদ্যালয়ে একই বিষয়ে পিএইচডি করার পরপরই চাকরিও পেয়ে যান। 

তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, চীনে শিক্ষার্থীরা সাধারণত ডিগ্রি শেষ করার এক বছর আগে চাকরির প্রস্তাব পায়। কিন্তু চূড়ান্ত বছরে চাকরির প্রস্তাব পাওয়ার নিশ্চয়তা নেই। 

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের চীনে কাজ করার অনুমতি নেই, তবে, তাদের বিশ্ববিদ্যালয় অনুমতি দিলে তারা পেইড ইন্টার্নশিপ করতে পারবে। 

“ইন্টার্নদের বেতন একেক কোম্পানিতে আলাদা। কিন্তু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির একজন শিক্ষার্থী ইন্টার্নশিপ দিয়ে প্রায় ৬ হাজার আরএমবি (৮০ হাজার টাকা) উপার্জন করতে পারে,” বলে তিনি জানান। 

“ম্যান্ডারিন ভাষা শেখা শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়ক হতে পারে, কিন্তু এটি চীনের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যই প্রয়োজনীয় নয়,” বলে জানান ড. মুজাহিদ। 

সিনহুয়া ইউনিভার্সিটি, পিকিং ইউনিভার্সিটি, ফুদান ইউনিভার্সিটি, ঝেজিয়াং ইউনিভার্সিটি, সাংহাই জিয়াও টং ইউনিভার্সিটি, চায়না সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ইউনিভার্সিটি, নানজিং ইউনিভার্সিটি, টংজি ইউনিভার্সিটি, উহান ইউনিভার্সিটি, হারবিন ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি চীনের শীর্ষস্থানীয় কিছু বিশ্ববিদ্যালয়। যেগুলো কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিং ২০২২-এ স্থান করে নিয়েছে। 

টিউশন ফি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয় এবং র‍্যাঙ্কিংয়ের উপর নির্ভর করে, উল্লেখ করে ডা. মুজাহিদ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পর্কিত বিষয়ের জন্য প্রতি বছর প্রায় ২০ হাজার আরএমবি (২ লাখ ৬৬ হাজার ৪৯৫ টাকা) খরচ হয়।

মারুফ হাসান বলেন, পরিবহন, বাড়ি ভাড়া, এবং মুদির খরচ শহর থেকে শহরে আলাদা। একজন শিক্ষার্থীর প্রতি মাসে মুদি কেনাকাটার জন্য প্রায় ৯ হাজার ৩০০ থেকে ১০ হাজার ৭০০ টাকা প্রয়োজন। 

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সাধারণত শিক্ষার্থীদের থাকার জন্য রুমের ব্যবস্থা করে থাকে। তবে, শিক্ষার্থীরা চাইলে ক্যাম্পাসের বাইরেও থাকতে পারে। 

এছাড়া, যাতায়াতের পরিবহনের প্রধান মাধ্যম সাধারণত বাস বা পাতাল রেল। যদিও বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে রাইড-শেয়ারিং পরিষেবাও দেওয়া হয়।

51
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail