কেনিয়ায় ইতিহাস গড়ে ভোটে জিতে গভর্নর সাত নারী

দেশে নিবন্ধিত ভোটারদের প্রায় অর্ধেক নারী হওয়া সত্ত্বেও খুব কম নারী নেতাই কেনিয়ায় নির্বাচনী পদে আসতে পারেন

কেনিয়ায় জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে ৪৭ জন গভর্নরের মধ্যে সাত জনই নারী। দেশটির ইতিহাসে এতজন নারী কখনোই এই পদে জিতে আসেননি। এর আগে সর্বোচ্চ নারী গভর্নর ছিলেন তিনজন।

গত ৯ আগস্ট দেশটিতে ভোট গ্রহণের পর শনিবার (১৩ আগস্ট) নির্বাচন কমিশনের প্রকাশিত ফলে এ তথ্য জানা যায়। গভর্নর পদের ফলাফল প্রকাশ হলেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল এখনো জানানো হয়নি।

কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সারাদেশে বেশিরভাগ নির্বাচনী এলাকায় গণনা চলছে। জাতীয় পরিষদের ২৯০ আসনের মধ্যে নারীরা এখন পর্যন্ত ছয়টিতে জয়ী হয়েছে।

দেশে নিবন্ধিত ভোটারদের প্রায় অর্ধেক নারী হওয়া সত্ত্বেও খুব কম নারী নেতাই কেনিয়ায় নির্বাচনী পদে আসতে পারেন।

রাজনীতিতে পুরুষের আধিপত্য কমাতে ও নারীকে নেতৃত্বকে তুলে ধরতে ২০১০ সালে সাংবিধানিকভাবে দেশটি ‘‘দুই-তৃতীয়াংশ শাসন’’ পদ্ধতি করে। এর মাধ্যমে রাজনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে তাতে খুব একটা পরিবর্তন হয়নি।

কেনিয়ার নারী সংসদীয় কমিটি বলছে, নির্বাচনের প্রস্তুতিতে, প্রচারণার সময় কয়েক ডজন নারী প্রার্থীর ওপর হামলা হয়েছে।

মঙ্গলবারের ভোটে নারী গভর্নর বৃদ্ধিকে ২০১৭-এর তুলনায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি বলে মনে করা হচ্ছে। ওই বছর দেশটিতে তিনজন নারী গভর্নর হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

নির্বাচিত সাত নারী গভর্নর হলে,ন সুসান কিহিকা (নাকুরু কাউন্টি), গ্ল্যাডিস ওয়াঙ্গা (হোমাবে কাউন্টি), সেসিকলি এমবারির (এমবু কাউন্টি), ওয়াভিনিয়া এনদেটি (মাচাকোস কাউন্টি), এবং ফাতুমা আচানি (কোয়ালে কাউন্টি), কাউইরা মওয়ানগাজা (মেরু) অ্যান ওয়াইগুরু (কিরিনিয়াগা কাউন্টি)।

এছাড়া নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, সংসদ সদস্য পদেও ছয়জন নারী জয়লাভ করেছেন।

ADVERTISEMENT

×