Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নেপালের নতুন মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত হলো 'ভারতীয় ভূখণ্ড'

এই বিল পাস হওয়ায় ইন্দো-নেপাল কূটনৈতিক উত্তেজনা আরও বাড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতীয় কূটনীতিবিদরা। অন্যদিকে, সংশোধিত মানচিত্রে উল্লেখিত এলাকাগুলি নিজেদের বলেই দাবি করছে নেপাল

আপডেট : ১৪ জুন ২০২০, ১২:১২ পিএম

নেপাল সংসদ পাস করেছে দেশটির সংবিধান সংশোধন বিল। তবে, ভারতীয় ভূখণ্ডকে মানচিত্রে ঢোকাতে এই সংশোধন আনা হয়েছিলো বলে দাবি করেছে ভারত। সেকারণে কাঠমান্ডুর এই আচরণ গ্রহণযোগ্য নয় বলে শনিবার (১৩ জুন) জানিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এক প্রতিবেদনে এখবর নিশ্চিত করেছে দেশটির গণমাধ্যম এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে মন্ত্রণালয়টির একজন মুখপাত্রের বরাতে বলা হয়, "আমরা দেখলাম নেপালের সংসদ সংবিধান সংশোধনী বিল গ্রহণ করেছে। ভারতীয় ভূখণ্ডকে নিজেদের মানচিত্রে স্থান করে দিতে পারবে নেপাল। এব্যাপারে আমরা আগেও আমাদের অবস্থান স্থির করে দিয়েছি।" 

এদিকে, নেপাল সংসদের নিম্নকক্ষে পাস হওয়া বিলটি এবার উচ্চকক্ষে যাবে। সেখান থেকে পাস হলে দেশটির প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরের পরই বিলটিকে সংবিধান গ্রহণ করবে সংসদ। আর এই পদ্ধতিকে আটকাতে নয়াদিল্লি বেশ সক্রিয় হয়েছে বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়। 

দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে নেপাল সংসদে পাস হয় সংবিধান সংশোধনী বিল। যে বিলে ভারতীয় ভূখণ্ডকে মানচিত্রে ঠাঁই দিয়েছে কাঠমাণ্ডু। ২৭৫ আসন বিশিষ্ট নেপাল সংসদে এই বিলের পক্ষে ভোট পড়ে ২৫৮টি। জানা গিয়েছে, বিলটি পাস করাতে খুব একটা কাঠখড় পোড়াতে হয়নি সরকারপক্ষকে। কারণ বিরোধী নেপাল কংগ্রেস আগেই বিলটি পূর্ণ সমর্থন দিতে সম্মত হয়েছিল। 

তবে, এই বিল পাস হওয়ায় ইন্দো-নেপাল কূটনৈতিক উত্তেজনা আরও বাড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতীয় কূটনীতিবিদরা। 

মূলত কালি নদীর উত্তর-পূর্ব এলাকা নিয়েই বেশি বিতর্ক রয়েছে। ভারতের দাবি, ওই এলাকার লিপুলেখ পাস উত্তরাখণ্ডের। পাশাপাশি লিম্পিয়াধুরা আর কালাপানি এলাকা সেই ১৯৬২ থেকে ভারতের সীমানার অংশ বলে বরাবরই দাবি করেছে ভারত। 

অন্যদিকে, সংশোধিত মানচিত্রে উল্লেখিত এলাকাগুলি নিজেদের বলে দাবি করছে নেপাল।

About

Popular Links