Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শীঘ্রই গলবে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বরফস্তর!

অ্যান্টার্কটিকায় থাকা এই বরফস্তরটির উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩,০০০ মিটার। অর্থাৎ, মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতার প্রায় ৩৫/৪০ ভাগ!

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০২:৪০ পিএম

বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে মহাসাগর আর সমুদ্রের পানি দিনদিন যেভাবে গরম হয়ে উঠছে তাতে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বরফের স্তরটিও আর কয়েকদিন পর হয়ত গলতে শুরু করবে। সম্প্রতি বিজ্ঞানীদের এক গবেষণায় উঠে এসেছে এই তথ্য। আর আতঙ্কিত হওয়ার মত এই গবেষণাপত্রটি প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নাল “প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস (পিনাস)”।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বরফের স্তরটি (আইস শিট) রয়েছে অ্যান্টার্কটিকায়। এর নাম “ইস্ট অ্যান্টার্কটিক আইস শিট”। পৃথিবীর দক্ষিণ মেরুও রয়েছে এই ইস্ট অ্যান্টার্কটিকায়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এই দৈত্যাকার বরফস্তরটির উচ্চতা প্রায় ৩,০০০ মিটার। অর্থাৎ, মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতার প্রায় ৩৫/৪০ ভাগ!

এই বরফের স্তরটিতে এখনও যে পরিমাণ বরফ রয়েছে তার আয়তন ২ কোটি ৭০ লক্ষ ঘন কিলোমিটার। এই বরফ পুরোপুরি গলে গেলে পৃথিবীর সবকয়টি মহাসাগর ও সমুদ্রের জল-স্তর ৫৮ মিটার বা ১৯০ ফুটেরও বেশি উঠে আসবে। ফলে, নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে বহু শহর, জনপদ, হারিয়ে যাবে বহু দেশ পৃথিবীর মানচিত্র থেকে, তলিয়ে যেতে সময় লাগবে না অনেক মহাদেশেরও বড় অংশের।

একটি আন্তর্জাতিক গবেষকদল এই হুঁশিয়ারি দিয়েছে তাদের সদ্য প্রকাশিত গবেষণাপত্রে। সেই দলে রয়েছেন, জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব আর্থ সায়েন্স ও ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী, গবেষকরা।

বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, মহাসাগর সংলগ্ন পৃথিবীর এই বৃহত্তম বরফের স্তরটির গলন উদ্বেগজনক ভাবে শুরু হতে হয়তো আর খুব দেরি হবে না। ফলে, এই শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে শুরু করে শেষ ভাগ পর্যন্ত মহাসাগর, সমুদ্রগুলির জল-স্তর উঠে আসতে পারে কম করে ৩ থেকে ৪ ফুট ওপরে। এমনকী তা উঠে আসতে পারে ৭ থেকে ১০ ফুটও। এতে পানির তলায় তলিয়ে যেতে পারে ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপের বিভিন্ন দেশের বহু শহর।

গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, খুব দ্রুত শিল্প আর প্রযুক্তির উন্নতি ঘটাতে গিয়ে প্রকৃতিতে মজুদ থাকা অপরিশোধিত তেল আর প্রাকৃতিক গ্যাসের অপ-ব্যবহারের কারণে এখন পৃথিবীর বাতাসে আমরা যে পরিমাণে কার্বন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই-অক্সাইডের মতো বিষাক্ত গ্রিনহাউস গ্যাস জমা করেছি, ২ কোটি ৮০ লক্ষ থেকে ২ কোটি ৪০ লক্ষ বছর আগেও আমাদের গ্রহের বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ ছিল ঠিক ততটাই। তার কারণটা অবশ্য ছিল ভিন্ন। পৃথিবীর গা তখন পুড়ে যাচ্ছে সৌরকিরণে। আর সূর্য তখন ছিলো বয়সে তরুণ। ফলে, ওই সময়েও ইস্ট অ্যান্টার্কটিকার এই বরফের স্তরটি গলে গিয়েছিল উল্লেখযোগ্যভাবে।

পরে, আজ থেকে ২ কোটি ৫০ লক্ষ বছর আগে থেকে যখন ধীরেধীরে ঠাণ্ডা হতে শুরু করে পৃথিবী। তখন আবার বরফ জমে বাড়িয়ে তোলে পৃথিবীর বৃহত্তম এই বরফের স্তরটিকে। তবে তাকে আর সেভাবে গলতে দেয়নি এতদিন।

About

Popular Links