Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফেলে দেওয়া মাস্ক জমিয়ে তৈরি হলো চেয়ার!

ভবিষ্যতে সেগুলো বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলেও জানিয়েছেন কিম হা-নেউল

আপডেট : ১৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৩৯ পিএম

দক্ষিণ কোরিয়ার এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী এই করোনাভাইরাস মহামারিকালেও পরিবেশ রক্ষায় দারুণ এক অবদান রেখেছেন৷ ফেলে দেওয়া মাস্ক থেকে চেয়ার তৈরি করছেন তিনি!

করোনাভাইরা

স সংক্রমণ শুরুর পর থেকে বিশ্বে কয়েক হাজার কোটি মাস্ক তৈরি হয়েছে এবং ব্যবহারের পর ফেলে দেওয়া মাস্কগুলো পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতিও করেছে। দক্ষিণ কোরিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী কিম হা-নেউল বেশ কিছুদিন যাবত ভেবেছেন বিষয়টি নিয়ে৷ তারপর ঠিক করেছেন যেসব মাস্ক পোলিপ্রপিলিনের তৈরি, সেগুলো সংগ্রহ করে তা থেকে চেয়ার বানাবেন তিনি!

বুদ্ধিটা মাথায় আসার পরই রাজধানী সিউলের কেয়ন ইউনিভার্সিটি অব আর্ট অ্যান্ড ডিজাইনের ছাত্র হা-নেউল ফেলে দেওয়া মাস্ক সংগ্রহে নেমে পড়েন৷ সহপাঠীদের সঙ্গে নিয়ে এপর্যন্ত ১০ হাজারের মতো মাস্ক নিজে সংগ্রহ করেছেন৷ এর বাইরে বিভিন্ন কারখানা থেকে পেয়েছেন কয়েক টন ত্রুটিযুক্ত মাস্ক৷ আর সেগুলো দিয়েই এখন পুরোদমে চলছে তার চেয়ার বানানোর কাজ৷

ব্যবহার করে ফেলে দেওয়া মাস্কের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় তা নিশ্চিত করতে সংগ্রহ করে আনার পর চারদিন রেখে দেওয়া হয়৷ তারপর ৩০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৫৭০ ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রায় মাস্কগুলো গলিয়ে চেয়ার বানানো হয়৷ নিজের তৈরি চেয়ার এখনো বিক্রি শুরু করেননি হা-নেউল৷ তবে তিনি ভবিষ্যতে সেগুলো বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে জানিয়েছেন৷

গত সেপ্টেম্বরে সরকারি হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়ায় ১শ’ কোটিরও বেশি মাস্ক তৈরি হয়েছে৷ দেশটিতে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত মাস্ক উৎপাদন চলবে, চলতে থাকবে পরিবেশ দূষণও। তাই বলা যায়, কিমের মাস্ক থেকে চেয়ার ও অন্যান্য আসবাবপত্র বানানোর সুযোগও অব্যাহত থাকবে!

About

Popular Links