Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বিশ্বে উৎপাদিত খাদ্যের ১৭% অপচয় হয়’

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ)  প্রকাশিত জাতিসংঘের এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে


আপডেট : ০৫ মার্চ ২০২১, ০৬:৩০ পিএম

২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী খাদ্যের অপচয় অর্ধেক কমানোর উদ্দেশে এক নতুন গবেষণা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ)  প্রকাশিত জাতিসংঘের সেই গবেষণা তথ্যানুসারে, ২০১৯ সালে বিক্রিত ৯৩০ মিলিয়ন টনেরও বেশি খাদ্য বর্জ্যের পাত্রে ফেলে দেওয়া হয়।

জাতিসংঘের এনভায়রনমেন্ট প্রোগ্রাম (ইউনেপ) এবং অংশীদার সংস্থা ডব্লিউআরএপি দ্বারা উপস্থাপিত "খাদ্য অপচয় সূচক রিপোর্ট ২০২১" -এ প্রকাশ করা হয় যে ঘরবাড়ি, রেস্তোঁরা ও দোকানগুলোতে সমস্ত খাবারের ১৭% খাবার ফেলে দেওয়া হয়।

জাতিসংঘ জানায়, কিছু খাদ্য খামার এবং সরবরাহ প্রক্রিয়ায়ও নষ্ট হয়, অর্থাৎ এক তৃতীয়াংশ খাবার কখনই খাওয়া হয় না। 

যদিও বেশিরভাগ খাদ্য অপচয় ধনী দেশগুলোর একটি সমস্যা হিসাবে বিবেচিত হয়েছিল, তবে এই প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে, সকল দেশেই অপচয়ের মাত্রা আশ্চর্যজনকভাবে একই রকম। যদিও দরিদ্র দেশগুলোর তথ্য খুব কমই রয়েছে।

সমীক্ষায় প্রকাশিত হয়েছে,  দরিদ্র দেশে পরিবারগুলো ফেলে দেয় ১১% খাদ্য । অন্যদিকে, খাদ্যসেবা এবং খুচরা বিক্রয়কেন্দ্রগুলো যথাক্রমে ৫% এবং ২% খাদ্য অপচয় করে।

এর পরিবেশগত, সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের ৮%-১০% অনিঃশেষিত খাবারের সাথে সম্পর্কিত।

২০১৯ সালে, প্রায় ৬৯ কোটি মানুষ খাদ্যাভাবে ছিল এবং তিনশ কোটি মানুষ স্বাস্থ্যকর খাদ্য যোগাড় করতে অক্ষম ছিল।

সেই পরিস্থিতিতে এবং কোভিড-১৯ এর সংকটে এই সংখ্যাকে আরও বাড়িয়ে তোলার জন্য ভোক্তাদের ঘরে খাবার নষ্ট না করার আহ্বান জানানো হয়েছে এই গবেষণায়।

এদিকে, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) এর লক্ষ্যমাত্রা ১২.৩ -এ বিশ্বব্যাপী খুচরা ও ভোক্তা পর্যায়ে মাথাপিছু খাদ্য অপচয় অর্ধেক করা এবং উত্পাদন ও সরবরাহ প্রক্রিয়ায় খাদ্য ক্ষয়কে হ্রাস করার কথা বলা হয়েছে।

ইউনেপের নির্বাহী পরিচালক ইনগার অ্যান্ডারসন বলেন, “এই বছর ইউএন ফুড সিস্টেম সামিট বিশ্বব্যাপী খাদ্য অপচয় মোকাবেলায় নতুন পদক্ষেপ গ্রহণের সুযোগ দেবে।” 


 

About

Popular Links