Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বন্ধ হয়ে যেতে পারে ভারতের ভ্যাকসিন উৎপাদন

যুক্তরাষ্ট্রের রফতানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা না হলে সেরামের ভ্যাকসিন উৎপাদনে পরিবর্তন ঘটবে

আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০২১, ০১:০৫ পিএম

যুক্তরাষ্ট্র করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরির প্রয়োজনীয় ৩৭টি উপাদান আমদানির অনুমতি না দিলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ভারতের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন উৎপাদন বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট (এসআইআই) থেকে ভ্যাকসিন আমদানি করছে বাংলাদেশ। তাই যুক্তরাষ্ট্রের অনুমতি না মিললে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বাংলাদেশও।

সেরাম ইনস্টিটিউট বর্তমানে প্রতি মাসে অস্ট্রাজেনেকা এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডের প্রায় ১০ কোটি ডোজ প্রস্তুত করছে। 

সংবাদমাধ্যম ইকোনোমিস্ট জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের রফতানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা না হলে সেরামের এই উৎপাদনে পরিবর্তন ঘটবে।

ইকোনোমিস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্র নিজ দেশের ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানিগুলো যেন ভ্যাকসিন উৎপাদনের প্রয়োজনীয় রসদ সহজে সংগ্রহ করতে পারে সেজন্য একটি আইন প্রণয়ন করে।

এই আইনের অধীনে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে ভ্যাকসিন তৈরির কাঁচামাল রফতানি করতে দেশীয় কোম্পানিগুলোকে অনুমতি নিতে হবে। তবে যদি মার্কিন সরকার মনে করে ওই কাঁচামালগুলো দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন, তাহলে কোম্পানিগুলো রফতানি বন্ধের আদেশ দিতে পারবে। 

করোনাভাইরাসে সংক্রমণ বৃদ্ধির এই সময় যুক্তরাষ্ট্রের রফতানি নিষেধাজ্ঞার কারণে বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিনের উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হওয়ার হুমকি দিচ্ছে। একই কারণে বাংলাদেশেও বৃদ্ধি পাচ্ছে মৃত্যুর সংখ্যা।

সেরাম ইনস্টিটিউটের দাবি, তারা যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে দু'মাস আগেই আসন্ন সমস্যা সম্পর্কে সতর্ক করেছিল।

সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদার পুনাওয়ালা শুক্রবার মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনকে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে কাঁচামাল রফতানির নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়েছেন।

 

সেরাম ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক সুরেশ যাদব বলেন, "আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। আমাদের নোভ্যাক্স ভ্যাকসিনেরও ৭ কোটি ডোজ উৎপাদনের পরিকল্পনা ছিল।"

দ্য ইকোনমিস্টের মতে, দুটি ভ্যাকসিনের উৎপাদন আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে প্রভাবিত হবে বলে। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের এই রফতানি নিষেধাজ্ঞা ইউরোপের ভ্যাকসিন উৎপাদনকেও ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে।

ভবিষ্যতের মহামারি রোধে ভ্যাকসিন তৈরির জন্য বিশ্বব্যাপী অংশীদারিত্বের কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপারেডনেস ইনোভেশনস (সিইপিআই) এর প্রধান রিচার্ড হ্যাচেটও এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থাকে সমস্যাটি সমাধানে সাহায্যের জন্য অনুরোধ করেছে।

About

Popular Links