Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীদের নেকাব দিয়ে মুখ ঢেকে ক্লাস করতে তালেবানদের নির্দেশ

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নারীদের অংশগ্রহণ সংক্রান্ত নীতিমালা জারি করল তালেবানরা

আপডেট : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৮ পিএম

শুধু হিজাব পরে মুখ খোলা রেখে আফগান নারীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কর্মক্ষেত্রে অংশ নেওয়ার নীতিমালা থেকে সরে এসে মুখ ঢাকা নেকাব পরে দেশটির নারীদের ক্লাসে আসার নতুন নীতিমালা জারি করেছে তালেবানের উচ্চশিক্ষা কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) জারিকৃত নীতিমালায় আরও বলা হয়, পুরুষদের সঙ্গে একই ক্লাসে নারীরা বসতে পারবে না। আর যদি একান্তই পুরুষদের সঙ্গে বসে ক্লাস করতে হয় তাহলে অন্তত পর্দা দিয়ে দুই পক্ষকে পৃথক হতে হবে।

এছাড়া, নারী শিক্ষকদেরই নারী শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়ার কথা বলা হয় নীতিমালায়। তবে কোনো কারণে নারী শিক্ষক না থাকলে সচ্চরিত্রের বয়স্ক পুরুষ শিক্ষকরাও পাঠ দান করতে পারবেন।

এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ থেকে পুরুষ শিক্ষার্থীদের চেয়ে নারী শিক্ষার্থীদের ৫ মিনিট আগে বের হওয়ার কথাও জানানো হয় ওই নীতিমালায়।

তালেবানের উচ্চশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি করা নীতিমালা অনুসারে পুরুষ সহকর্মীরা ভবন থেকে বের না হওয়া পর্যন্ত নারীদের অপেক্ষা করতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, "মেয়েদের আলাদাভাবে পাঠদান করার জন্য আমাদের পর্যাপ্ত নার প্রশিক্ষক বা ক্লাস নেই বলে কার্যত এটি একটি কঠিন পরিকল্পনা। কিন্তু তালেবানরা যে নারীদের স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে দিচ্ছে তা একটি বড় ইতিবাচক পদক্ষেপ।"

তালেবানদের জারিকৃত নতুন নীতিমালা প্রাইভেট কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, যা ২০০১ সালে তালেবানের প্রথম শাসনের অবসানের পর থেকে বেড়েছে। সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) আফগানিস্তানে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত এসব নীতিমালা দিল তালেবানরা।

তালেবানদের সেই শাসনামলে শ্রেণিকক্ষে একই সঙ্গে নারী-পুরুষ ক্লাস করার বিধান থাকায় এবং পুরুষ আত্মীয়ের সঙ্গে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসার বাধ্যবাধকতার কারণে বেশিরভাগ নারীই শিক্ষাগ্রহণ থেকে বঞ্চিত হত। তালেবানদের সর্বশেষ শাসনামলের পর গত দুই দশকে বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী শিক্ষার্থীদের ভর্তির হার উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে কাবুলের নারীরা বোরকা ও নিকাবের ব্যবহার বহুলাংশে কমিয়ে দিলেও দেশটির ছোট অঞ্চল আর শহরগুলোতে নারীরা এখনও বোরকা আর নিকাব পরেই চলাফেরা করে।

তালেবানরা আরো একটি "অন্তর্ভুক্তিমূলক" সরকারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যদিও তাতে শীর্ষস্তরে নারীদের অন্তর্ভুক্তির সম্ভাবনা কম।

সপ্তাহ তিনেক আগে তালেবানরা আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নেওয়ার আগ পর্যন্ত পুরুষদের সঙ্গে নারীরা শিক্ষাগ্রহণের পাশাপাশি পুরুষ অধ্যাপকদের সাথে সেমিনারেও অংশ দিতেন। কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে শিক্ষা কেন্দ্রে মারাত্মক হামলার ফলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যদিও তালেবান হামলার পেছনে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

About

Popular Links