Wednesday, June 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এই নারীই কি বিশ্বের সবচেয়ে বড় পায়ের অধিকারী?

৬ ফুট ৯ ইঞ্চি উচ্চতার এই মার্কিন নারীর ডান পায়ের আকার ৩৩.১ সেন্টিমিটার (১৩.০৩ ইঞ্চি) এবং তার বাম পায়ের মাপ ৩২.৫ সেমি (১২.৭৯ ইঞ্চি) 

আপডেট : ১৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:২৭ পিএম

পা একটু বড় হলে মাপ অনুযায়ী জুতা খুঁজতে বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়নি এমন মানুষ পাওয়া ভার। তবে তানিয়া হার্বাটের জুতার মাপ শুনলে জুতার মাপ নিয়ে আপনার বিড়ম্বনা নস্যি বলে মনে হবে। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মাপকাঠিতে এই মার্কিন নারীর জুতার মাপ যে ইউএস ওম্যান ১৮ বা ইউএস মেনস ১৬-১৭।

তানিয়া হার্বাটের জুতার মাপ এত বড় হওয়ার পেছনে যে তার পায়ের বৃহদাকৃতি বড় ভূমিকা রেখেছে, সেটি না বলে দিলেও চলছে। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের বাসিন্দা এই নারীর ডান পায়ের আকার ৩৩.১ সেন্টিমিটার (১৩.০৩ ইঞ্চি) এবং তার বাম পায়ের মাপ ৩২.৫ সেমি (১২.৭৯ ইঞ্চি)। এই বৃহদাকার পা নিয়ে জীবিত নারীদের মধ্যে সবচেয়ে বড় পায়ের অধিকারী হওয়ার গিনেস রেকর্ডও গড়েছেন তানিয়া।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে বলা হয়, স্কুলজীবন থেকেই সমবয়সী এবং সমসাময়িক অন্যদের তুলনায় বেশ লম্বাই ছিলেন তানিয়া হার্বাট। ৬ ফুট ৯ ইঞ্চি উচ্চতার এই মার্কিন নারীর পা হাইস্কুল থেকে বাড়তে বাড়তে আজ রেকর্ড গড়ে নিয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে হারবার্ট বলেন, আমার মায়ের উচ্চতা ছিল ৬ ফুট ৫ ইঞ্চি এবং বাবার ৬ ফুট ৪ ইঞ্চি। তাই স্বাভাবিকভাবেই আমিও লম্বা হয়েছি। তবে লম্বা হওয়া নিয়ে আমাকে কোনো বাজে পরিস্থিতিতে পড়তে হয়নি। আমার অভিভাবক সবসময়ই পাশে ছিলেন। বন্ধুরাও আমার খুব যত্ন নিতো যেন আমার উচ্চতা বাড়তে থাকে।

কিন্তু বড় পায়ের কারণে মাপ অনুযায়ী জুতা পাওয়াও বেশ কষ্টকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায় হার্বাটের জন্য। নিজের পায়ের মাপ অনুযায়ী নারীদের জুতা না পেয়ে জীবনের অধিকাংশ সময়ে পুরুষদের জুতা পরতে হয়েছে তাকে। এ প্রসঙ্গে তানিয়া হার্বাট বলেন, আমি সবসময় টেনিস সু বা পুরুষদের লোফার পরতাম। তবে স্কুলের পোশাকের সঙ্গে অবশ্য সেগুলো একদমই মানানসই ছিল না।

তার মতো যেসব নারীদের বড় পায়ের কারণে মাপমতো জুতা খুঁজতে বেগ পেতে হয়, তাদের উদ্দেশে নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে তানিয়া বলেন, অনলাইনে স্টকে থাকা সবচেয়ে বড় মাপের জুতা কিনতাম। এরপর আমি সেগুলোকে আমার জুতার মাপ অনুযায়ী বানাতাম, যেন জুতাগুলো আমার পায়ের আকারের সঙ্গে মানানসই হয়।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষকে হারবার্ট বলেন, ১২ বা ১৩ মাপের জুতা খুঁজতেই নারীদের ঘাম ঝরে। আর সেখানে আমার জুতার মাপ ১৮। পুরুষদের জন্য যেকোনো সাইজের জুতা পাওয়া গেলেও নারীদের ক্ষেত্রে সেটি পাওয়া যায় না। একজন বিশ্বরেকর্ডধারী হিসেবে আমি জুতা উৎপাদন শিল্পে যুগান্তকারী পরিবর্তন আনতে চাই।

About

Popular Links