Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

প্লাস্টিক সার্জারিতে কোরিয়ান সেজেও শেষরক্ষা হলো না থাই মাদক কারবারির!

পুলিশের চোখ ফাঁকি দেওয়ার পাশাপাশি সুদর্শন কোরিয়ান পুরুষের মতো দেখাতে প্লাস্টিক সার্জারি করাতেন তিনি

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২৩, ১০:৪৫ পিএম

পুলিশের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্লাস্টিক সার্জারি করিয়ে কোরিয়ান সেজেছিলেন। কিন্তু তবুও শেষরক্ষা হলো না। পুলিশের হাতে ধরাই পড়ে গেলেন থাইল্যান্ডের মাদক মাফিয়া সাহারত সাওয়াংজায়েং।

সিএনএন জানিয়েছে, ২৫ বছর বয়সী প্লাস্টিক সার্জারি করে চেহারার পরিবর্তনের পাশাপাশি পাল্টে ফেলেন নিজের নামও। জিমিন চেয়ং নামে সবাইকে পরিচয় দিতেন তিনি। গত সপ্তাহে ব্যাংককের একটি কনডোমিনিয়াম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সাহারত সাওয়াংজায়েং সুদর্শন কোরিয়ান পুরুষের মতো দেখতে এবং আইন এড়াতে বেশ কয়েকবার মুখের প্লাস্টিক সার্জারি করান।

পুলিশ প্রায় ৩ মাস ধরে ওই যুবকের সন্ধানে করছিল। বিষয়ে পুলিশ জানিয়েছে, তার আসল চেহারার কোনা কিছুই আর অবশিষ্ট নেই। 

ব্যাংককের বিভিন্ন ক্রেতা-বিক্রেতার কাছে এক্সট্যাসি (উত্তেজক মাদক) বিক্রির তালিকা অনুসন্ধান করে তাকে চিহ্নিত করা হয়।

পুলিশ জানায়, সাহারতের বিরুদ্ধে মাদকের অবৈধ আমদানির অভিযোগ আনা হয়েছে। তিনি ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে ডার্ক ওয়েবে এমডিএমএ (এক্সট্যাসি নামেও পরিচিত) অর্ডার করার কথা স্বীকার করেছেন।

এর আগে সাহারত অন্তত তিনবার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। একবার তাকে হামলার অভিযোগে আটক করা হয়েছিল। তখন পুলিশ তার কাছ থেকে ২৯০টি এক্সটেসি ট্যাবলেট এবং ২ কেজি (৪.৪ পাউন্ড) মাদকদ্রব্য তরল আকারে খুঁজে পেয়েছিল।

ভাগ্যক্রমে সেবার সাহারত পালাতে পেরেছিলেন। এরপরই প্লাস্টিক সার্জারি করানো শুরু করেন তিনি।

পুলিশের দেওয়া গ্রেপ্তারের একটি ভিডিওতে সাওয়াংজায়েং বলেছেন, তিনি দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান। 

তিনি বলেন, “আমি একটি নতুন জীবন শুরু করতে চাই। আমি থাইল্যান্ডে থেকে বিরক্ত।”

About

Popular Links