Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘ধনী হতে ধর্মীয় আচার পালন’, কেরালায় দুই নারীকে নির্মমভাবে হত্যা

পুলিশ বলছে, হত্যাকাণ্ডের পর নিহতদের শরীরের বিভিন্ন অংশ খেয়ে ফেলা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দুই নারীরই স্তন কেটে ফেলা হয় এবং একজনকে ৫৬ টুকরো করা হয়

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২২, ০৫:৩৯ পিএম

“আর্থিক মঙ্গল লাভের আশায়” ধর্মীয় আচার পালন করতে গিয়ে ভারতের কেরালায় দুই নারীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। হত্যাকাণ্ডের পর ওই দুই নারীর দেহ বিকৃতভাবে কাটাকুটিও করা হয় বলে জানা গেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বুধবার (১২ অক্টোবর) এক প্রতিবেদনে জানায়, নিহত দুই নারীর নাম রোসেলিন ও পদ্মা। পুলিশের সন্দেহ, অভিযুক্তরা “নরমাংসভোজী” হয়ে থাকতে পারে। তবে এটি প্রমাণ করার মতো নথিপত্র এই মুহূর্তে পুলিশের হাতে নেই। আলামতের ফরেনসিক পরীক্ষা চলছে।

কোচি পুলিশ প্রধান সিএইচ নাগারাজু বলেন, “অভিযুক্তরা ভুক্তভোগীদের হত্যার পর শরীরের বিভিন্ন অংশ খেয়ে ফেলে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে, তবে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।”

কেরালা পুলিশ জানায়, রোসেলিন ও পদ্মাকে শক্ত করে বেঁধে নির্যাতন চালানো হয়। দুজনের হাত পেছনে বেঁধে রাখা হয়েছিল। তাদের দুজনেরই স্তন কেটে ফেলার ঘটনা ঘটেছে। হত্যাকাণ্ডের শিকার একজনকে ৫৬ টুকরো করা হয়েছে।

এই হত্যাকাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত মুহম্মদ শফি নামে এক ব্যক্তি। ৭৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা নারীর ওপর যৌন নিপীড়নের মামলায় তিনি বর্তমানে জামিনে আছেন। 

অভিযোগ রয়েছে, শফি “পর্ন ফিল্মে” অভিনয়ের জন্য রোসেলিন ও পদ্মাকে টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। একই সময়ে তিনি মামলার অন্য দুই অভিযুক্ত ভগবাল সিং এবং লায়লাকে তাদের আর্থিক সমস্যার অবসান ঘটাতে “মানুষ কেটে হত্যার” পরামর্শ দেন।

ভগবাল সিং একজন ম্যাসাজ থেরাপিস্ট। তিনি স্থানীয় ক্ষমতাসীন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে জানা গেছে। ক্ষমতাসীন দলের একজন এনডিটিভিকে বলেছেন, “ভগবাল আমাদের সঙ্গে কাজ করতেন কিন্তু আমাদের দলের সদস্য ছিলেন না। তিনি একসময় প্রগতিশীল চিন্তার মানুষ ছিলেন, কিন্তু দ্বিতীয় বিয়ের পর তিনি ধার্মিক হয়ে ওঠেন। এটা তার স্ত্রীর প্রভাব হতে পারে।”

পুলিশ জানায়, জুন মাসে রোসেলিন নিখোঁজ হন এবং সেপ্টেম্বরে পদ্মা। হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ পদ্মার নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি তদন্ত করে। ওই নারী মোবাইলে শাফির সঙ্গে কথা বলেছিলেন। পুলিশের ধারণা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যোগাযোগ করে শাফি নারীদের প্রলুব্ধ করতেন।

About

Popular Links