Friday, June 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শাহরুখপুত্রের মামলায় কর্মকর্তাদের ‘অনিয়ম’, সন্দেহ এনসিবির

গত বছরের ২ অক্টোবর মুম্বাই উপকূলে কর্ডেলিয়া প্রমোদতরি থেকে আটক করা হয় আরিয়ানসহ সাতজনকে, একমাস পর মুক্তি পান তিনি

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৫৬ পিএম

শাহরুখপুত্র আরিয়ান খানকে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার ও তার বিরুদ্ধে তদন্তে ‘‘অনিয়মের’’ প্রমাণ পেয়েছে ভারতের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ব্যুরো (এনসিবি)। এ ঘটনায় সংস্থাটি নিজেদের সাত-আটজন কর্মীর ‘‘সন্দেহজনক আচরণও’’ লক্ষ্য করেছে।

গত বছরের ২ অক্টোবর মুম্বাই উপকূলে কর্ডেলিয়া প্রমোদতরি থেকে আটক করা হয় আরিয়ানসহ সাতজনকে। তারপর মাদক সেবন ও মাদক চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে থাকার অপরাধে ৩ অক্টোবর তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। প্রায় এক মাস জেলে থাকার পর বাড়ি ফেরেন আরিয়ান খান। এর পর তদন্ত শেষে আরিয়ান খানকে সকল অভিযোগ থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। এনসিবি সেসময় জানিয়েছিল, ‘‘শাহরুখপুত্রের বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’’

এদিকে পরে ওই ঘটনায় আরিয়ানের বিরুদ্ধে মামলায় জড়িত এনসিবি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সম্প্রতি ওই তদন্ত প্রতিবেদন দিল্লির সদর দপ্তরে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮ অক্টোবর) এনসিবির এক কর্মকর্তা জানান, ‘‘তদন্তে মামলায় অনেক অনিয়মের খোঁজ মিলেছে। তদন্তে জড়িত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।।’’

সূত্র জানায়, এনসিবি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ওই তদন্তে ৬৫ জনের বক্তব্য রেকর্ড করা হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই একইদিনে তিন থেকে চার বার নিজের বক্তব্য পরিবর্তন করেছে। এছাড়া মামলা তদন্তেও ত্রুটি পাওয়া গেছে।

অভিযোগ উঠেছিল, আরিয়ানের বিরুদ্ধে মামলা বন্ধে একটি চাঁদাবাজ চক্র অর্থও দাবি করেছিল। তবে এটির প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

তদন্তে কিছু লোককে বেছে বেছে লক্ষ্যবস্তু করার বিষয়টি প্রমাণ পাওয়া যায়।

সংস্থার এক কর্মকর্তা জানান, ৭-৮ জন কর্মকর্তার ‘‘সন্দেহজনক আচরণ’’ দেখা গেছে। এজন্য বিভাগীয় তদন্ত শুরু করা হয়েছে। এনসিবির বাইরে জড়িত অন্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ঊর্ধ্বতনদের অনুমতি চাওয়া হয়েছে।

এর আগে, আরিয়ান খান ছাড়া পাওয়ার পরেই মামলায় অনিয়মের অভিযোগে ওই অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া সমীর ওয়াংখেড়েকে এনসিবি সদর দপ্তর থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এছাড়া তার সহযোগীদেরও বিভিন্ন জায়গায় বদলি করা হয়।

About

Popular Links