Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সেতু দুর্ঘটনায় পরিবারের ১২ জনকে হারালেন বিজেপি সাংসদ

বয়স্কদের পাশাপাশি এ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে পরিবারটির পাঁচ শিশুও

আপডেট : ৩১ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৫৮ পিএম

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গুজরাটে একটি ঝুলন্ত সেতু ভেঙে নদীতে পড়ে ১৪১ জন নিহতের ঘটনা ঘটেছে। মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় পাঁচ শিশুসহ পরিবারের ১২ জন সদস্যকে হারিয়েছেন রাজ্যটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপির এক সংসদ সদস্য।

রবিবার (৩০ অক্টোবর) রাজ্যটির মোরবি জেলায় মাচ্ছু নদীতে নির্মিত প্রায় দেড়শ বছরের পুরোনো ওই সেতু ভেঙে পড়লে প্রাণহানির এই ঘটনা ঘটে।

সেতু দুর্ঘটনায় পরিবারের ১২ জন সদস্যকে হারানো ওই বিজেপি এমপির নাম মোহনভাই কল্যাণজি কুন্দারিয়ার। তিনি রাজ্যটির রাজকোটের বিজেপি দলীয় সংসদ সদস্য।

সোমবার (৩১ অক্টোবর) হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডেকে বিজেপির এই এমপি বলেন, ‘‘সেতু দুর্ঘটনায় আমি আমার পরিবারের ১২ সদস্যকে হারিয়েছি। তাদের মধ্যে রয়েছে ৫ জন শিশু। আমার বোনের পরিবারের সদস্যদের এই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে।''

তিনি আরও বলেন, ‘‘এনডিআরএফ, এসডিআরএফ ও স্থানীয় প্রশাসন উদ্ধারকাজ ও তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে। উদ্ধারকারী নৌকা ঘটনাস্থলে রয়েছে। কিছু মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং বাকিদের মাচ্ছু নদী থেকে উদ্ধারের কাজ চলছে।''

রবিবার সন্ধ্যায় গুজরাটের মোরবি জেলায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় অন্তত পাঁচ শতাধিক মানুষ সেতু ভেঙে নদীতে পড়ে যান।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত প্রায় ১৭৭ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। এখনও অনুসন্ধান চলছে বলে উদ্ধার অভিযান পরিচালনাকারী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ব্রিটিশ আমলে নির্মিত সেতুটি সংস্কারের পর চার দিন আগেই চালু করা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় ১৫০ বছর আগে নির্মিত মোরবির ঝুলন্ত এই সেতু ভারতের ঐতিহাসিক স্থাপনার তালিকায়ও রয়েছে।মচ্ছু নদীর ওপর ঝুলন্ত সেতুটি ছিল পর্যটকদের আকর্ষণের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু।

ঝুলন্ত সেতুটি আহমেদাবাদ থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে। রবিবার সন্ধ্যার দিকে প্রায় ৫০০ জন পূজার কিছু আচার-অনুষ্ঠান করার জন্য সেতুটিতে জড়ো হয়েছিল। হঠাৎ এটি ভেঙে পড়ে।

মোরবি পৌরসভার কর্মকর্তারা বলেছেন, যথাযথ ফিটনেস সার্টিফিকেট ছাড়াই সেতুটি পুনরায় খুলে দেওয়া হয়েছিল। স্থানীয় একটি বেসরকারি ট্রাস্ট সেতুটির মেরামত ও সংস্কার কাজ করেছে। কিন্তু রাজ্য সরকারের ফিটনেস সার্টিফিকেট ছাড়াই ওই ট্রাস্ট সেতুটি খুলে দেয়।

এ ঘটনায় গুজরাট পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল (ডিজি) আশিস ভাটিয়া বলেছিলেন, “উদ্ধারকাজ চলছে এবং অনেক মানুষকে উদ্ধার করে সুরক্ষিত জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।”

ঐতিহাসিক এই সেতু ভেঙে পড়ার ঘটনা এমন এক সময়ে ঘটল যখন তিন দিনের সফরে গুজরাটে অবস্থান করছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই বিষয়ে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী ভূপেন্দ্র প্যাটেলের সঙ্গে কথা বলেছেন। এ সময় তিনি উদ্ধার তৎপরতা পুরোদমে চালানো ও ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়ার নির্দেশ দেন।

এদিকে কংগ্রেস ও আম আদমি পার্টি এই ট্র্যাজেডির জন্য বিজেপিকে দায়ী করেছে। মর্মান্তিক এ ঘটনার তদন্ত দাবি করেছে কংগ্রেস।

ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য দুই লাখ রুপি ও প্রত্যেক আহত ব্যক্তিকে ৫০ হাজার রুপি করে দেওয়ার ঘোষণা করা হয়েছে।

About

Popular Links