Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিহার-পশ্চিমবঙ্গে রামনবমীর মিছিল ঘিরে উত্তেজনা

পরিস্থিতি সামাল দিতে বিভিন্ন অঞ্চলে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করা হয়েছে, কোথাও কোথাও ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৩, ০৯:৫৩ পিএম

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে রামনবমীর দিন প্রথম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সেটিই পরে হাওড়া জেলায়ও উত্তাপ ছড়ায়।

অভিযোগ ওঠে, মিছিলকারীদের সঙ্গে প্রথম ঝগড়া ও পরে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উত্তেজনা থেকে পুলিশের একটি গাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। 

একই ঘটনা ঘটে হুগলির রিষড়ায় ও হাওড়ার শিবপুরে। অন্যদিকে বিহারে খোদ মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের এলাকায় সংঘর্ষ হয়েছে। এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার এ রামনবমী ছিল। সেদিন ভারতের বিভিন্ন এলাকায় মিঠিল বের হয়। পশ্চিমবঙ্গের একাধিক জেলায় মিছিল হয়েছে। সর্বত্রই মিছিলের সঙ্গে ছিল পুলিশ এবং দাঙ্গা প্রতিরোধের পুলিশ। তবুও হাওড়ার ঘটনা আটকানো যায়নি। পরে হাওড়ার শিবপুরেও সহিংসতার ঘটনা ঘটে। একদিন পর হুগলির রিষড়াতেও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সেই সকল অঞ্চলে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করা হয়েছে। কোনো কোনো এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। 

পুলিশ জানিয়েছে, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক। তবে বিভিন্ন এলাকায় এখনো চাপা উত্তেজনা আছে।

চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেট থেকে জানানো হয়েছে, এলাকায় পুলিশ রুট মার্চ করছে। ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। সোমবার সকাল পর্যন্ত রিষড়ায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ থাকবে।

রিষড়ার ঘটনার জন্য পুলিশ এখনো পর্যন্ত ১২ জনকে গ্রেপ্তার করেছে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। আরো কিছু ব্যক্তিকে খোঁজা হচ্ছে।

অন্যদিকে হাওড়ার ঘটনাতেও বেশ কিছু দুর্বৃত্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

গোটা ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস।

তিনি বলেছেন, দাঙ্গাবাজরা কখনোই গণতন্ত্রকে হারাতে পারবে না।

দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

অন্যদিকে জাতীয় তদন্ত সংস্থার (এএনআই) অধীনে ঘটনার তদন্ত দাবি করেছে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতৃত্ব।

বিহারের অবস্থা

বিহারের বিহার শরিফ এবং নালন্দা অঞ্চলেও রামনবমীর মিছিলকে কেন্দ্র করে একই ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। সাসারাম, বিহার শরিফ, এবং নালন্দা অঞ্চলে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। একাধিকবার এই সমস্ত অঞ্চলে সংঘর্ষ হয়েছে। নালন্দায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সভা ছিল। সংঘর্ষের জন্য তা শেষ মুহূর্তে বাতিল করা হয়। 

বিহার পুলিশ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, ঘটনায় বেশ কিছু বাড়ি আগুনে পুড়ে গেছে। বহু মানুষ আহত হয়েছেন। দুইজন পুলিশও আহত হয়েছেন।

পুলিশের ডেপুটি ইনস্পেক্টর জেনারেল নবীনচন্দ্র ঝা, জেলা শাসক ধর্মেন্দ্র কুমার, এলাকার এসপি বিনীত কুমার—সবাই রুট মার্চে অংশ নিয়েছেন। পরিস্থিতি আপাতত অনেকটাই স্বাভাবিক বলে জানিয়েছে বিহারের প্রশাসন।

আসলে বিহার শরিফ অঞ্চলটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর এলাকায় কী করে এত সংঘর্ষ হচ্ছে, তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে।

About

Popular Links