Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মিশরে ৭৫৫ বছরের পুরোনো মসজিদ ফের চালু

১২৬৮ সালে মামলুক শাসনের অধীনে নির্মিত এই মসজিদটি মধ্য কায়রোর ঠিক উত্তরে তিন একর এলাকাজুড়ে বিস্তৃত

আপডেট : ১০ জুন ২০২৩, ০৯:২৫ পিএম

উত্তর আফ্রিকার দেশ মিশরে ৭৫৫ বছরের একটি পুরোনো ঐতিহাসিক মসজিদ পুনরায় চালু করা হয়েছে। অতীতে এই মসজিদটি কখনো সাবান কারখানা, কখনো দুর্গ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল।

দীর্ঘ সংস্কারের পর ত্রয়োদশ শতকে নির্মিত আল-জাহির বাইবারস নামে এ মসজিদটি সম্প্রতি খুলে দেওয়া হয়।

এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে মার্কিন বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

রয়টার্স বলছে, ১২৬৮ সালে মামলুক শাসনের অধীনে নির্মিত এই মসজিদটি মধ্য কায়রোর ঠিক উত্তরে তিন একর এলাকাজুড়ে বিস্তৃত। এটি মিশরের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ।

মসজিদটির সংস্কার কাজের তত্ত্বাবধান করেছেন তারেক মোহাম্মদ আল-বেহারি। রয়টার্সের কাছে তিনি তার সংস্কার কাজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন।

তারেক মোহাম্মদ আল-বেহারি বলেন, মসজিদটিকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে অনেক কষ্ট করেছি আমরা। যান্ত্রিক সংস্কার চালানোর পাশাপাশি রাসায়নিক সংস্কার কার্যক্রমও চালানো হয়েছে। অনেক পুরোনো স্থাপনা হওয়ায় মসজিদের কিছু অংশ আগেই ধ্বংস হয়ে গেছে। এবার সংস্কার করার সময় কিছু অংশ ভেঙে ফেলতে বাধ্য হয়েছি আমরা। কারণ ওই অংশগুলো কাঠামোগতভাবে মসজিদের অংশ হিসেবে একেবারেই অনুপযুক্ত। প্রত্নতাত্ত্বিক শৈলী মেনে কাজ করার ক্ষেত্রে আমরা কোনো আপস করিনি। মসজিদটিকে একেবারে আগের মতো পুনর্গঠনের ব্যাপারে আমরা খুব আগ্রহী ছিলাম।

রয়টার্স জানিয়েছে, ঐতিহাসিক এই মসজিদটির সংস্কার কার্যক্রমে ব্যয় হয়েছে ৭৬ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০০৭ সালে এই সংস্কার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। সংস্কার কার্যক্রমে মিশরকে সাহায্য করেছে মধ্য এশিয়ার দেশ কাজাখস্তান।

বার্তা সংস্থাটি বলছে, নির্মিত হওয়ার পর থেকে মসজিদটি ধর্মীয়ভাবেই চালু ছিল। তবে ২২৫ বছর আগে মসজিদটি বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় এটি পরিত্যক্ত বা ব্যবসায়ীক উদ্দেশ্যে পরিচালিত হয়ে আসছিল। আর এর ফলেই কালের পাতা থেকে ধীরে ধীরে হারিয়ে যায় ঐতিহাসিক এই মসজিদটি।

ঐতিহাসিক তথ্য অনুযায়ী, মিশরে নেপোলিয়নের অভিযানের সময় এই মসজিদটি একটি সামরিক দুর্গ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল। তারপর ১৯ শতকে অটোমান শাসনের অধীনে এটি ব্যবহৃত হয় একটি সাবান কারখানা হিসেবে। পরে ১৮৮২ সালে ব্রিটিশরা মিশরে আক্রমণ করলে এটি একটি কসাইখানা হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়।

মিশরে ১২৫০ সাল থেকে ১৫১৭ সাল পর্যন্ত টানা তিন শতাব্দীজুড়ে বিস্তৃত ছিল মামলুক শাসন। এই রাজবংশের একজন বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব আল-জাহির বাইবারস। মিশরের মাটিতে মামলুক শাসনকে দৃঢ় করার অন্যতম কৃতিত্ব ছিল তার।

About

Popular Links