Friday, June 14, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সৌদি আরবে তীব্র গরমে ৬,৫০০ হজযাত্রীর হিটস্ট্রোক

হজে তীব্র গরম থেকে বাঁচতে ছাতা ব্যবহারসহ পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি ও অন্যান্য তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেয় সৌদির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

আপডেট : ২৯ জুন ২০২৩, ০৯:০৬ পিএম

সৌদি আরবে পবিত্র হজে তীব্র গরমে ৬,৫০০ হজযাত্রী হিটস্ট্রোকের শিকার হয়েছেন। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে গালফ নিউজ।

সৌদি গণমাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ডক্টর মোহাম্মদ আল-আব্দুলআলি বলেছেন, বৃহস্পতিবার ভোরে মক্কার কাছে মিনা উপত্যকায় তাপমাত্রা ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছায়। এতে ওই হজযাত্রীরা হিটস্ট্রোকের শিকার হন।

এছাড়া গত ৩৯ দিনে মক্কা ও মদিনায় গরমে অসুস্থ হয়ে পড়া এক লাখ ১১ হাজার ৭৬১ জন হাজিকে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে হজে তীব্র গরম থেকে বাঁচতে ছাতা ব্যবহারসহ পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি ও অন্যান্য তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেয় সৌদির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এখবারিয়া টিভির সরাসরি সম্প্রচারিত এক ভিডিওতে দেখা যায়, তীব্র গরমে অসুস্থ হয়ে পড়া এক সৌদি নিরাপত্তাকর্মী একজন হাজির চোখে-মুখে ঠান্ডা পানি ছিটাচ্ছেন।

এ বছর হজযাত্রীদের সেবায় সৌদি আরবের হজের স্থানগুলোতে মোট ১৭২টি স্বাস্থ্যসেবা বুথ স্থাপন করা হয়েছে।

বৈশ্বিক উষ্ণতা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সৌদির মরুভূমির জলবায়ুকে আরও গরম করে তুলেছে। এটি ১,৪০০ বছর আগে মোহাম্মদের সময়ের তাপমাত্রার বহুগুণ বেশি।

ওয়াশিংটন ভিত্তিক মধ্যপ্রাচ্য ইন্সটিটিউটের অনাবাসী বিশেষজ্ঞ করিম এলজেন্ডি বলেন, “জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তেল সমৃদ্ধ দেশটিতে গত তাপমাত্রা চার দশকে ২.৫ ডিগ্রি বেড়েছে।”

তিনি এএফপিকে বলেন, “শতাব্দীর শেষে গ্রীষ্মের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে।”

তীব্র গরমে মুসল্লিদের কিছুটা স্বস্তি দিতে মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদের বাইরে লম্বা খুঁটি থেকে পানি ছিটানো হয়।

কর্তৃপক্ষ জানায়, হিটস্ট্রোক ও অন্য অসুস্থতায় আক্রান্তদের চিকিৎসায় ৩২,০০০ জনের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োজিত ছিলেন। বিনামূল্যে পানির বোতল সরবরাহ করা হয়।

কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে এ বছর রেকর্ড পরিমাণ হজযাত্রী সৌদি আরব গেছেন বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। এ বছর সর্বোচ্চ বয়সসীমাও তুলে দেওয়া হয়েছে। ফলে বয়স্ক অনেকেই হজ পালন করতে যান।

পৃথিবীর উষ্ণতম অঞ্চলের একটিতে গ্রীষ্মকালে বাইরে মানুষের যাতায়াত খুবই বিপদজনক। এতে ডিহাইড্রেশন ও হৃদরোগে আক্রান্তের সম্ভাবনা থাকে। এমনকি গরমের কারণে সৌদি আরবে জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাইরে শ্রমিকদের কাজ করাও নিষিদ্ধ থাকে।

উপসাগরীয় জলবায়ু এতোটাই খারাপ অবস্থায় আছে যে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞ দল জানায়, তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে শতাব্দীর শেষ নাগাদ বিশ্বের কিছু অঞ্চল বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠতে পারে।

হজ ও বছর জুড়ে ওমরাহ থেকে সৌদি আরব বছরে ১২ বিলিয়ন ডলার আয় করে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশটি তেল ছাড়াও অন্য খাতে অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি আনতে পর্যটনে বিনিয়োগ করছে। সেজন্য মক্কায়ও ব্যাপক কর্মযজ্ঞ নিয়েছে সৌদি রাজ পরিবার।

About

Popular Links