Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফাইজারের তৈরি ট্যাবলেট মৃত্যু ঝুঁকি কমায় ৮৯%

যুক্তরাজ্য ইতোমধ্যেই আড়াই লাখ ফাইজারের ট্যাবলেট এবং মলনুপিরাভির পিলের আরও ৪ লাখ ৮০ হাজার ডোজের অর্ডার দিয়েছে

আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০২১, ১২:৩০ পিএম

মার্কিন কোম্পানি ফাইজারের পরীক্ষামূলক করোনাভাইরাস প্রতিরোধক পিল উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা বয়স্কদের হাসপাতালে ভর্তি ও মৃত্যু ঝুঁকি প্রায় ৮৯% হ্রাস করতে সক্ষম বলে দাবি করেছে ওষুধ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানটি। 

শুক্রবার (৫ নভেম্বর) বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

ট্যাবলেটটির ক্লিনিকাল ট্রায়ালে এই ফলাফল পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে ফাইজার। ফাইজার বলেছে যে, প্রাথমিকভাবে ফলাফল অনেক ইতিবাচক থাকায় এর ট্রায়াল বন্ধ করে দিয়েছে। ফাইজারের প্রধান সায়েন্টিফিক কর্মকর্তা মাইকেল ডলস্টার বলেন, “আমরা অসাধারণ কিছুর আশা করছি। এই ওষুধের সামান্য কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তবে সব বয়সের মানুষের মধ্যেই এই প্রতিক্রিয়ার মাত্রা কাছাকাছি।”

বর্তমানে করোনাভাইরাসের চিকিৎসার জন্য আইভি বা ইনজেকশন প্রয়োজন হয়। এদিকে ওষুধ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান মের্ক এর করোনাভাইরাস প্রতিরোধক পিল ইতোমধ্যে মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) পর্যালোচনার আওতায় আছে।

ফাইজার জানিয়েছে, এফডিএ ও আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রকদের যত দ্রুত সম্ভব তাদের পিল ব্যবহারের অনুমোদনের জন্য অনুরোধ করবে তারা। ফাইজার একবার আবেদন করলে এফডিএ কয়েক সপ্তাহ কিংবা মাসের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।

ফাইজারের তৈরি “প্যাক্সলোভিড” ট্যাবলেট গুরুতর রোগের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে লক্ষণ দেখা দিলেই গ্রহণ করতে হবে।

এর একদিন আগেই মার্কের কোভিড-১৯ পিল মলনুপিরাভির অনুমোদন দিয়েছে ব্রিটেন। এটিই এখন পর্যন্ত বিশ্বে কোভিডের একমাত্র অনুমোদিত মুখে খাওয়ার ওষুধ। এই পিল হাসপাতালে ভর্তি ও মৃত্যুর হার কমিয়ে আনে অর্ধেকে। সে তুলনায় ফাইজারের এন্টিভাইরাল পিল অনেক বেশি কার্যকর বলে স্কাই নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

যুক্তরাজ্য ইতোমধ্যেই আড়াই লাখ ফাইজারের ট্যাবলেট এবং মলনুপিরাভির পিলের আরও ৪ লাখ ৮০ হাজার ডোজের অর্ডার দিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের ওষুধ নিয়ন্ত্রক মার্ক শার্প ও ডোহমে (এমএসডি) থেকে অনুরূপ চিকিৎসা পদ্ধতি অনুমোদন দেওয়ার একদিন পরে ফাইজারের ট্যাবলেটের এই ফলাফল পাওয়া গেল।

এর আগে ৭৭৫ জন পূর্ণ বয়স্ক মানুষের উপরে এই ওষুধ পরীক্ষা করা হয়। এতেই দেখা যায় এই ওষুধ ৮৯% কার্যকরী। এই ওষুধ নেওয়া মাত্র ১% কে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল। পরীক্ষায় যারা অংশ নিয়েছেন তারা সবাই ছিলেন কোভিড আক্রান্ত এবং কোনো ধরণের ভ্যাকসিন গ্রহণ না করা। ফাইজারের এন্টিভাইরাল খাওয়া অংশগ্রহণকারীদের কারও মৃত্যু হয়নি।


About

Popular Links