Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

উড়োজাহাজে যাত্রীদের খাবার মেন্যুতে ‘ডগ ফুড’

যাত্রীর খাবারের মেন্যুতে কুকুরের খাবারের নামটি নজর কেড়েছে অনেকের

আপডেট : ২০ নভেম্বর ২০২৩, ০৭:৩৪ পিএম

যাত্রীদের খাবার পরিবেশনে এয়ারলাইন্স অনুযায়ী ভিন্নতা রয়েছে। কোনো কোনো এয়ারলাইন্স হালকা নাশতা দিলেও অনেক কর্তৃপক্ষই নিজস্ব সংস্কৃতি অনুযায়ী খাবার পরিবেশন করে থাকে। তবে সম্প্রতি একটি চীনা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে খাবারের মেন্যু দেখে রীতিমতো হতবাক যাত্রীরা।

এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিজনেস ক্লাসের এক যাত্রী সম্প্রতি উড়োজাহাজের খাবারের মেন্যুর একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম রেডিটে পোস্ট করেন। 

মেন্যুতে গরুর মাংস, সামুদ্রিক খাবার ও স্যুপসহ আরও খাবরের নাম রয়েছে। এর মধ্যে একটি খাবারের নাম দেওয়া হয়েছে, “ইম্পোর্টেড ডগ ফুড”। মূলত যাত্রীর খাবারের মেন্যুতে কুকুরের খাবারের নামটিই নজর কেড়েছে।

বিষয়টি নিয়ে তৈরি হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা। কনরাড উ নামে একজন ছবি শেয়ার করে বিস্ময় প্রকাশ করেন। তিনি লিখেছেন, “এটি আসলে কী?”

উড়োজাহাজ যাত্রীর করা পোস্টটি এরইমধ্যে হাজারো মানুষের নজরে এসেছে। ঝড়ের গতিতে লাইক কমেন্ট করছেন উৎসুকরা।

একজন যেমন সমালোচনা করে লিখেছেন, “এরা যাত্রীকে মানুষ নয়, কুকুরের মতো বিবেচনা করে।”

আবার অনেকেই বলছেন, “এটি সম্ভবত গুগল ট্রান্সলেটরের খেল। ভুলভাল অনুবাদ করে এমনটা হয়েছে। আসলে এই খাবারের নাম হবে, ‘হট ডগ’।”

যাইহোক, ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। তবে তারা কোনো জবাব দেয়নি। এমনকি এই খাবারের আসল অর্থ কি সেটিও পরিষ্কার করে জানায়নি।

২০০০ সালের দিকে জাপান এয়ারলাইন্স যাত্রীর পছন্দসই খাবার পরিবেশনের নিয়ম চালু করে। এখন অনেক এয়ারলাইন্স একইভাবে খাবার পরিবেশন করছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে অবশ্য জাপান এয়ারলাইন্সের এক কাণ্ড বেশ মুখরোচক হয়েছিল। যেখানে ওই যাত্রী নিরামিষ খাবার চেয়ে পেয়েছিলেন একটি কলা।

ওই যাত্রী পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেন, “কলা পেয়ে ভেবেছি, আরও কিছু হয়ত আসবে। কর্তৃপক্ষ জানায়, এটাই নাকি পুরো মেন্যুর খাবার!”

About

Popular Links