Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ইসরায়েলকে যেসব সামরিক সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

দুই দেশের মধ্যে চুক্তি অনুসারে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে নানাভাবেই সহায়তা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ

আপডেট : ০৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫৬ পিএম

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে বেশি মার্কিন সামরিক সহায়তা পেয়েছে ইসরায়েল। ওয়াশিংটন ইসরায়েলকে বিলিয়ন ডলারের সামরিক তহবিল ছাড়াও দিয়েছে বড় রকমের অস্ত্র-প্রতিরক্ষা সহায়তা। তবে এসব লাগাম টেনে ধরার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।  করেছেন শর্ত আরোপ।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়েছেন, গাজার বেসামরিক নাগরিক ও ত্রাণসহায়তাকর্মীদের হত্যা বন্ধ না হলে হামাসবিরোধী লড়াইয়ে ইসরায়েলকে আর সহায়তা দেবে না তার দেশ। তবে দুই দেশের মধ্যে চুক্তি অনুসারে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে নানাভাবেই সহায়তা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

২০১৬ সালে মার্কিন এবং ইসরায়েলি সরকার তৃতীয়বারের মতো ১০ বছর মেয়াদি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। এই চুক্তির অধীনে ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০২৮ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত—এই ১০ বছরে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে মোট ৩৮০০ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা দেবে। এর মধ্যে সামরিক সরঞ্জাম কেনার জন্য ৩৩০০ কোটি ডলার এবং ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জন্য থাকবে ৫০০ কোটি ডলার।

প্রযুক্তিগতভাবে এখন পর্যন্ত তৈরি সবচেয়ে উন্নত ফাইটার জেট হিসেবে ধরা হয় এফ-৩৫ জয়েন্ট স্ট্রাইক ফাইটারকে। এই যুদ্ধবিমান আন্তর্জাতিকভাবে প্রথম ব্যবহার করেছে ইসরায়েল। ৭৫টি এফ-৩৫ জয়েন্ট স্ট্রাইক ফাইটার কিনতে যাচ্ছে ইসরায়েল। গত বছরও এই ধরনের ৩৬টি যুদ্ধবিমান কিনেছিল তারা। আর মার্কিন সহায়তা থেকেই এসবের টাকা পরিশোধ করেছে ইসরায়েল।

২০০৬ সালে ইসরায়েল এবং লেবাননভিত্তিক সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর মধ্যে যুদ্ধের পর স্বল্প পরিসরের আয়রন ডোম রকেট প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার বিকাশ ও অস্ত্র তৈরিতে ইসরায়েলকে সহায়তা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ইসরায়েলকে তার ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়তে তুলতেও বেশ কয়েকবার মিলিয়ন ডলার দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।
 
১০০ থেকে ২০০ কিলোমিটার (৬২ মাইল থেকে ১২৪ মাইল) দূরে ছোড়া রকেটকে গুলি করার জন্য তৈরি সামরিক ব্যবস্থা হচ্ছে ডেভিড’স স্লিং সিস্টেম। এই ব্যবস্থার উন্নয়নেও অর্থ সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

About

Popular Links